বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই, ২০২২

ভয়াবহ ভূমিকম্প আফগানিস্তানে! মৃত কমপক্ষে ২৫০ জন, আহত বহু

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২২, ১২:২২ পিএম | আপডেট: জুন ২২, ২০২২, ১২:২২ পিএম

ভয়াবহ ভূমিকম্প আফগানিস্তানে! মৃত কমপক্ষে ২৫০ জন, আহত বহু
ভয়াবহ ভূমিকম্প আফগানিস্তানে! মৃত কমপক্ষে ২৫০ জন, আহত বহু

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ভয়াবহ ভূমিকম্প আফগানিস্তানে। রিখটার স্কেলে এই কম্পনের মাত্রা ছিল ৬.১। জানা গিয়েছে, বুধবার ভোরে আচমকাই কম্পন অনুভূত হয় আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে। এই কম্পনের উৎসস্থল ছিল খোস্ত শহর। খোস্তের ৪৪ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে প্রবল কম্পন অনুভূত হয়। এর জেরে ভেঙে পড়ে একাধিক বাড়ি। ভূমিকম্পের জেরে এখনও পর্যন্ত কমপক্ষে ২৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে।

এদিকে, আফগানিস্তানের দুর্যোগ মোকাবিলা বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এদিন ভোরেই ভূমিকম্প হয়েছে। জানা গিয়েছে, সব মিলিয়ে আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং ভারতের প্রায় ৫০০ কিলোমিটার অঞ্চল এই ভুমিকম্পের কবলে পড়েছে। যদিও বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে আফগানিস্তান।

মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে আহত হয়েছেন বহু মানুষ। জানা গিয়েছে, মৃতদের মধ্যে ১০০ জন আফগানিস্তানের পাকতিকা জেলার। তালিবান প্রশাসনের বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের প্রধান মহম্মদ নাসিম হাক্কানি জানিয়েছেন, এই পাকতিকা জেলাতেই অধিকাংশ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২৫০ জন মানুষ গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন। সেই সঙ্গে অসংখ্য মানুষ রাতারাতি এই ভূমিকম্পের জেরে নিজেদের বাসস্থান হারিয়েছেন।

আবার এই ভূমিকম্পের উৎসস্থল খোস্ত জেলার নানগরহর অঞ্চলেও একাধিক মানুষের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। হেলিকপটারের সাহায্যে আটকে পড়া মানুষদের উদ্ধারকাজ চালানো হচ্ছে। এদিকে, একাধিক বহুতল ধসে পড়ায়, আরও মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে। ধ্বংসস্তূপের নীচে বহু মানুষের চাপা পরে থাকার আশঙ্কাও রয়েছে।  এদিকে, সূত্রের খবর, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যুর সংখ্যা এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলেই জানা গিয়েছে।  অন্যদিকে, শুধুমাত্র আফগানিস্তানেই নয়, এই ভূমিকম্পের প্রভাব পড়েছে পাকিস্তানেও। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পাকিস্তানের লাহোর, মুলতান, কুয়েতা এবং আশপাশের বিভিন্ন জেলায়। পাকিস্তানেও বেশ কিছু বাড়ি ভেঙে পড়েছে বলেই সূত্রের খবর।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আফগানিস্তানে তালিবান ক্ষমতায় আসার পর থেকেই গুরুতর অর্থনৈতিক সংকট চলছে সেদেশে। অধিকাংশ প্রদেশেই ন্যূনতম প্রয়োজনীয় জিনিসের অভাব রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বুধবারের এই ভয়াবহ ভূমিকম্প কার্যত দিশেহারা দেশটি। এই ক্ষয়ক্ষতি পূরণ করতে গিয়ে আরও গভীর সমস্যায় পড়তে হবে সেদেশের সরকারকে। এমনটাই মনে করা হচ্ছে।