শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

এবার শূন্যে উড়বে গাড়ি! গতিবেগ ঘণ্টায় ২৩০ কিমি, সফল ট্রায়ালও

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২, ০৫:৫৫ পিএম | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২, ০৬:০৬ পিএম

এবার শূন্যে উড়বে গাড়ি! গতিবেগ ঘণ্টায় ২৩০ কিমি, সফল ট্রায়ালও
এবার শূন্যে উড়বে গাড়ি! গতিবেগ ঘণ্টায় ২৩০ কিমি, সফল ট্রায়ালও

শূন্যে উড়ছে বাইক বা চারচাকা গাড়ি! সিনেমার পর্দায় এমন দৃশ্য আকছারই দেখা যায়। বিশেষ করে কল্পবিজ্ঞান ভিত্তিক সিনেমায় এ দৃশ্য তো খুবই সাধারণ বিষয়। কিন্তু বাস্তবে কি এমনটা কখনও সম্ভব? যদি বলা হয় হ্যাঁ! দিন কয়েক আগে উড়ন্ত এক মোটর বাইকের প্রদর্শনী হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। আর এবার চারচাকা গাড়ির ট্রায়াল দেওয়া হল চীনেও।

সম্প্রতি চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সিনহুয়ার রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, গত সপ্তাহে সিচুয়ান প্রদেশের চেংডুতে দক্ষিণ-পশ্চিম জিয়াওটং বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘উড়ন্ত’ যাত্রীবাহী চারচাকা গাড়ির ট্রায়াল দেওয়া হয়। সুখবর হচ্ছে, এই উড়ন্ত গাড়ির পরীক্ষা সফল হয়েছে। আর উড়ন্ত গাড়ির এই সফল পরীক্ষার বিষয়টি একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, এই গাড়িগুলি একটি কন্ডাক্টর রেলের উপরে ৩৫ মিলিমিটার ভাসতে পারে। গবেষকরা এই ধরনের গাড়ির তলদেশে শক্তিশালী চুম্বক সংযুক্ত করেছেন। বুলেট ট্রেনের মতোই চুম্বক ব্যবহার করে এটি শূন্যে ভেসে যায়। এই ধরনের আটটি মোডিফাইড গাড়ি পরীক্ষা করা হয়েছে। গবেষকরা ৮ কিলোমিটার রেলপথে এই গাড়িগুলি পরীক্ষা করে দেখেন।

রিপোর্ট অনুযায়ী জানা যাচ্ছে, এই আটটি গাড়ির মধ্যে একটি গাড়ি সর্বোচ্চ গতিবেগ তুলতে সক্ষম হয়। যার গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ২৩০ কিলোমিটার। গবেষকরা জানাচ্ছেন, চৌম্বক শক্তি ব্যবহার করে এই ধরনের গাড়ি চালানোর পরিপ্রেক্ষিতে কম শক্তি খরচ হবে। এছাড়াও এই ধরনের গাড়ি পরিবেশ বান্ধবও বটে।

জানা গিয়েছে, চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়ায় যে প্রযুক্তিতে ট্রেন চলাচল করে সেই প্রযুক্তি ব্যবহার করেই এই ধরনের গাড়িগুলি চালানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ১৯৮০ সাল থেকে রেলে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে চার চাকার ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তির ব্যবহার এই প্রথম, এমনটাই দাবি গবেষকদের। আপাতত সরকারি পরিবহন কর্তৃপক্ষ এই সকল গাড়ির নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখছে এবং তার জন্যই এই সকল পরীক্ষা চালাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।