শনিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩

নারীশক্তির জয়! ঢাকা মেট্রোয় প্রথম মহিলা চালক হিসেবে নজির গড়লেন মরিয়ম

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৮, ২০২২, ০৯:৩৮ পিএম | আপডেট: ডিসেম্বর ২৮, ২০২২, ০৯:৩৮ পিএম

নারীশক্তির জয়! ঢাকা মেট্রোয় প্রথম মহিলা চালক হিসেবে নজির গড়লেন মরিয়ম
নারীশক্তির জয়! ঢাকা মেট্রোয় প্রথম মহিলা চালক হিসেবে নজির গড়লেন মরিয়ম

বহু প্রতীক্ষার অবশেষে বাংলাদেশে চালু হল মেট্রো পরিষেবা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বুধবার উদ্বোধিত হল ঢাকা মেট্রোরেলের (Dhaka Metro Rail)। আর এই ট্রেনের প্রথম চালক হলেন এক মহিলা! মরিয়ম আফিজার হাত দিয়েই আজ আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হল প্রথম ঢাকা মেট্রো।

বুধবার সকাল ১১টায় উত্তরা থেকে ঢাকা মেট্রোরেলের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উত্তরায় উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে উত্তরা থেকে যাত্রী নিয়ে আগারগাঁওয় যায় ট্রেনে প্রথম রেকটি। সেখানে যাত্রী হিসেবে ছিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ মন্ত্রীসভার অন্যান্য সদস্য ও আমন্ত্রিত অতিথিরা। আর এই রেকের চালক হিসেবে নজির গড়লেন মরিয়ম।

ঢাকা মেট্রোর দায়িত্বে রয়েছে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট লিমিটেড (DMTCL)। ডিএমসিটিএলের এমডি এমএএন সিদ্দিক বলেন, "মেট্রো রেল সুষ্ঠভাবে চালানোর জন্য চালকদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনীয় সংখ্যক অপারেটর নিয়োগ করাও হয়েছে। চালক হিসাবে যাদের নিয়োগ করা হয়েছে তাঁদের মধ্যে ছয় জন মহিলাও রয়েছেন।" এই ছ‍‍`জনে মধ্যে মরিয়ম আফিজাই উদ্বোধনের দিন চালকের আসনে বসলেন।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে স্নাতকোত্তর শেষ করে মেট্রোরেলের চালক হিসেবে যোগ দেন মরিয়ম৷ সূত্রের খবর, মরিয়ম টানা এক বছর প্রশিক্ষণ নিয়ে চালক হিসেবে নিজেকে তৈরি করার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন। সেই সঙ্গে চট্টগ্রামের হালিশহরের বাংলাদেশ রেলওয়ে ট্রেনিং একাডেমি থেকে দু‍‍`মাসের আরেকটি ট্রেনিংও নেন। ঢাকায় ফিরে আসার পরে তাঁকে আরও চারমাসের একটি প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উত্তরার দিয়াবাড়ির মেট্রো রেল ডিপোতে এই ট্রেনের কারিগরি ও ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তাঁকে। মেট্রোর চালকদের ট্রেন চালানোর বিষয়ে মেট্রোরেলের নির্মাণকারী সংস্থা জাপানের মিৎসুবিশি-কাওয়াসাকি কোম্পানির বিশেষজ্ঞরাও যাবতীয় ট্রেনিং দিয়েছেন।

আপাতত ঢাকা মেট্রোর তরফে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকে ট্রেনে যাতায়াত করতে পারবেন সাধারণ যাত্রীরা। জানা গিয়েছে, উত্তরা থেকে আগারওগাঁও পর্যন্ত যেতে সময় লাগবে ১০ মিনিট, ভাড়া পড়বে ৬০ টাকা। প্রকল্প সূত্র বলছে, প্রতি মেট্রোর ছয়টি কোচের মধ্যে দুই প্রান্তের দুটি কোচ অর্থাৎ ট্রেইলর কারে চালক থাকবেন। এসব কোচে ৪৮ জন করে যাত্রী বসতে পারবে। মাঝখানের চারটি কোচ মোটরকারে বসার ব্যবস্থা আছে ৫৪ জনের। সব মিলিয়ে একটি মেট্রোতে বসে যেতে পারবে ৩০৬ জন।

প্রতিটি কোচ সাড়ে ৯ ফুট চওড়া। দাঁড়ানো যাত্রীদের ধরার জন্য ওপরে হাতল এবং স্থানে স্থানে খুঁটি আছে। সব মিলিয়ে একটি ট্রেনে বসে ও দাঁড়িয়ে সর্বোচ্চ ২ হাজার ৩০৮ জন যাত্রী চড়তে পারবেন। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মেট্রো ট্রেনের দুই পাশে সবুজ রঙের প্লাস্টিকের দুই সারি লম্বা আসন পাতা হয়েছে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় নির্মাণাধীন শহরভিত্তিক রেল ব্যবস্থা হচ্ছে ঢাকা মেট্রো যা আনুষ্ঠানিকভাবে ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা সংক্ষেপে এমআরটি নামে পরিচিত।