দাউ দাউ জ্বলছে বিয়ের মণ্ডপ, দেখেও খেতে ব্যস্ত অতিথিরা! ভিডিও ভাইরাল হতেই তোলপাড় নেটদুনিয়া

দাউ দাউ জ্বলছে বিয়ের মণ্ডপ, দেখেও খেতে ব্যস্ত অতিথিরা! ভিডিও ভাইরাল হতেই তোলপাড় নেটদুনিয়া
দাউ দাউ জ্বলছে বিয়ের মণ্ডপ, দেখেও খেতে ব্যস্ত অতিথিরা! ভিডিও ভাইরাল হতেই তোলপাড় নেটদুনিয়া

বিয়েবাড়ি মানেই হইহট্টগোল, হাসি-মজা। আর তার সঙ্গেই সবচেয়ে বড় আকর্ষণ খাওয়াদাওয়া। বিয়েবাড়ির খাওয়াদাওয়া মানে এক এলাহি ব্যাপার। কত আয়োজনই না থাকে সেখানে। তাই খেতে বসে অন্যদিকে মন যায় না বললেই চলে! কিন্তু ধরুন এই শুভ অনুষ্ঠানের মধ্যেই যদি ভয়ঙ্কর আতঙ্কের কোনও ঘটনা ঘটে তখনও কি মনের সুখে পাত চাটতে পারবেন অতিথিরা? সব কিছু ফেলে কি খাওয়াতেই মন দেবেন? ঠিক সেরকমই এক কাণ্ড এবার ঘটল মহারাষ্ট্রের থানের একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে। বিয়ের অনুষ্ঠানে দাউ দাউ করে জ্বলছে আগুন। আর তা দেখেও জমিয়ে ভোজ খাচ্ছেন আমন্ত্রিতরা!

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এই ভিডিও। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিয়েবাড়ির খাবার জায়গার পিছনেই দাউ দাউ করে জ্বলছে আগুন। কিন্তু তাতে যেন আমন্ত্রিতদের কোনও ভ্রুক্ষেপই নেই। আগুনের শিখা দেখতে পেয়েও খাওয়াতেই মন দিয়েছেন তাঁরা। জমিয়ে খাচ্ছেন বিয়েবাড়ির ভোজ। এরই মধ্যে আগুন দেখে এক অতিথি চমকে উঠে খানিক ভয় পেলেও পরমুহূর্তেই তাঁকে দেখা গেল ফের খাওয়াতেই মনোনিবেশ করতে। বাকি অতিথিরাও একই কাজে ব্যস্ত তখন।

এই ভয়ঙ্কর ঘটনাটি ঘটে রবিবার রাত ১০টা নাগাদ। মহারাষ্ট্রের থানের ভিওয়ান্ডির আনসারি হলে চলছিল এই বিয়ের অনুষ্ঠান। সেখানেই প্রথম আগুন লাগে হলের স্টোররুমে। বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালীন একটি কারেন্টের তার আচমকা ছিঁড়ে যায়। শর্ট সার্কিট থেকেই ওই আগুন লাগে। সেই আগুনে হলের সামনে রাখা ৬টি বাইক আর কিছু চেয়ার পুড়ে গিয়েছে। তবে হতাহতের কোনও খবর মেলেনি। সম্প্রতি ফায়ার ব্রিগেডের তরফে এই ভিডিয়ো পোস্ট করা হয়েছে ফেসবুকে। সেখানেই জানানো হয়েছে সম্পূর্ণ বিষয়টি।

ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সেই ভিডিও। তা দেখে নেটদুনিয়ায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে। নেটিজেনরা একাধিক মন্তব্যও করেছেন। অনেকে লিখেছেন, ‘আগে জীবন পরে খাওয়া’। আবার কেউ লিখেছেন, ‘জীবন যায় যাক, কিন্তু খাবার ছাড়া যাবে না’। অন্য এক নেটনাগরিক লিখেছেন, ‘যেখানে খাবার সেখানেই ভারতীয়রা। আরেকজনের আবার দাবি, ‘শত অগ্নিকাণ্ডও খাওয়া থেকে আমাদের দূরে রাখতে পারবে না। হাজার অসুবিধা সত্ত্বেও ভুরিভোজ ঠিকই চলছে। এটাই হল ভারতীয় ঐতিহ্য। ‘

অন্যদিকে, বিয়েবাড়ির অনুষ্ঠানে কীভাবে আগুন লাগল, তা নিয়ে এখনও ধন্দে ফায়ার ব্রিগেড কর্তৃপক্ষ। আগুন লাগার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায় দমকলের তিনটি ইঞ্জিন। প্রথমেই স্টোর রুম থেকে জিনিসপত্র সরিয়ে ফেলা হয়৷ অতিথিদেরও সুরক্ষিত জায়গায় সরিয়ে দেওয়া হয়৷ দমকলের কর্মকর্তাদের একাংশের ধারণা, সম্ভবত আতশবাজির আগুন থেকেই ইলেকট্রিকের তারে আগুন ধরে গিয়েছে। যদিও ওই স্টোররুম থেকে তেমন কোনও দাহ্য পদার্থ খুঁজে পাননি তাঁরা।