“দিলীপ ঘোষের পাগলা গারদে থাকা উচিৎ”: জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক

Image source: Google

বিশেষ প্রতিবেদনঃ শুরু থেকেই CAA ও NRC-এর বিরোধিতা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। সিএএ বিরোধিতায় বহু মিটিং-মিছিলও করেছেন তিনি। তবে এবার পাহড়ে গিয়ে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় মিছিলে হাঁটলেন তৃনমূল সুপ্রিমো। গেরুয়া শিবিরকে এদিন তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, দেশ থেকে একজন নাগরিককেও তিনি বের করতে দেবেননা। এর পরেই CAA সমর্থন মিছিল থেকে মুখ্যমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফরকে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন তাঁর কটাক্ষের পাল্টা জবাব দিলেন তৃণমূল নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

উত্তরবঙ্গে যখন মুখ্যমন্ত্রী CAA বিরোধিতায় সুর চড়িছেন সেদিন কোচবিহারে CAA-এর সমর্থনে পথে নেমেছিলেন দিলীপ ঘোষ। ফালাকাটার ধূপগুড়ি থেকে বুধবার শুরু হয় বিজেপির অভিনন্দন যাত্রা। এদিনে বিজেপির এই সভাযাত্রায় দিলীপ ঘোষ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কোচবিহারের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক। সভাযাত্রা থেকে এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, “আমি প্রতিটা জেলাতেই মিছিল করছি। বিজেপির সাথে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। টাকা দিয়ে শাসক দল ফালাকাটা উপনির্বাচনের ভোট কিনতে চাইছে। কিন্তু তাতে কোন লাভ হবেনা।“ এরপরেই মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে দিলীপ ঘোষ বলেন, “লোকসভা ভোট দিদিকে সমতলে নামিয়ে দিয়েছে। উনি আবার পাহাড়ে হাঁটাহাঁটি করে কি করবেন?”

মমতা বন্দোপাধ্যায়কে এহেন তোপ দাগায় দিলীপ ঘোষকে এদিন পাল্টা আক্রমন করতে ছাড়েননি খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।এদিন দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে জ্যোতিপ্রিয় বাবু বলেন, “দিলীপ ঘোষের মতো মানুষদের পাগলা গারদে থাকা উচিৎ। পুরো বিজেপি দলটাই পাগলে পরিণত হয়েছে। “ এরপরেই দিলীপ ঘোষকে সম্বোধন করে তিনি আরও বলেন, “রাঁচির পাগলা গারদ থেকে উনি বেরিয়ে এলেন কীভাবে? তা ভেবে দেখা দরকার। এটা রবীন্দ্রনাথ ও বিবেকানন্দের বাংলা। বিজেপির গোটা দলটাই পাগলে ভরে গিয়েছে।“ এর পরেই তৃণমূল নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বিজেপির গোটা দলকেই ঠিক করে চিকিৎসা করার পরামর্শ দেন।

আরও পড়ুনঃ  রাজ্যপালের আশ্বাসেও অজানা আতঙ্ক উপত্যকা জুড়ে

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.