গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক

গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক
গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক

গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! আজ, উপনির্বাচনের দিন ঘোষণার দিনেই তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক সৌমেন রায়। শনিবার, কলকাতার দলীয় কার্যালয়ে সৌমেন রায়ের হাতে পতাকা তুলে দিলেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। একে একে মুকুল রায়, তন্ময় ঘোষ, বিশ্বজিত দাসের পর এবার কালিয়াগঞ্জের বিধায়কও ঘাসফুলে যোগ দেওয়ায় বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা ৭৭ থেকে কমে দাঁড়ালো ৭১-এ।

গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক
গেরুয়া শিবিরে ফের ভাঙন! তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন কালিয়াগঞ্জের বিজেপি বিধায়ক

এদিন তৃনমূলে ‘ঘর ওয়াপসি’র পর সৌমেন রায় জানান, “ছাত্র রাজনীতির সময় থেকেই আমি তৃণমূলের সঙ্গে যুক্ত। মাঝে কিছুদিন বিজেপিতে যোগদান করি। সেটা আমারই ভুল। আমি বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছিলাম। দলের কাছে আমি ক্ষমাপ্রার্থী।” পাশাপাশি তাঁর আরও মত, “দিদি গত ১০ বছর ধরে বাংলায় মানুষের উন্নয়ন ঘটিয়েছেন। আমি আগামীতে দিদির এই উন্নয়নের কর্মকাণ্ডের সঙ্গেই নিজেকে যুক্ত রাখতে চাই। বিজেপি ভাগাভাগির রাজনীতিতে বিশ্বাসী। বাংলার সংস্কৃতির সঙ্গে বিজেপির রাজনীতি কখনই মিলবে না।”

এখানেই শেষ নয়! এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে তৃনমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জানান, বিজেপির একাধিক বিধায়ক ঘাসফুলে যোগ দেওয়ার আবেদন করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের দলে ফেরানো হবে। একই সুর কালিয়াগঞ্জের বিধায়কের গলাতেও। সৌমেন রায়ের দাবী, “বিজেপির আরও অনেকে জোড়াফুল শিবিরে ফিরতে চলেছেন। সামনে আরও কিছু ঘটবে। একটু অপেক্ষা করে দেখুন কী হয়।”

উল্লেখ্য, এর আগে সাংসদ পদে থাকার জন্য বিজেপির জগন্নাথ সরকার এবং নিশীথ প্রামানিক বিধায়ক পদ থেকে পদত্যাগ করেন। তারপর একে একে মুকুল রায়, তন্ময় ঘোষ, বিশ্বজিৎ দাস দল ছেড়ে জোড়াফুলে ফিরে আসেন। ফলে রাজ্যে বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা ক্রমশ কমতির পথে। আজ সৌমেন রায় তৃনমূলে যোগ দিতেই ফের ঘর ভাঙল বিজেপির৷