“মহাত্মা গান্ধী কোন‌ও দিনই নেতাজিকে সমর্থন করেননি”! এবার কঙ্গনার নিশানায় দেশের বাপু

“মহাত্মা গান্ধী কোন‌ও দিনই নেতাজিকে সমর্থন করেননি”! এবার কঙ্গনার নিশানায় দেশের বাপু
“মহাত্মা গান্ধী কোন‌ও দিনই নেতাজিকে সমর্থন করেননি”! এবার কঙ্গনার নিশানায় দেশের বাপু

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ বলিউডের অন্যতম বিতর্কিত অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত। এমন একটাও দিন থাকেনা যেখানে কঙ্গনার নাম সংবাদ মাধ্যমে উঠে আসেনা। সমস্ত বিষয়ে কঙ্গনা নির্ভয়ে নিজের মতামত প্রকাশ করতে পিছুপা হননা। বলিউডের অন্ধকার দিক, রাজনৈতিক দিক প্রায় সমস্ত দিকেই নিজের মন্তব্য প্রকাশ করেছেন ঠোঁটকাটা বলিউড কুইন। এই যুদ্ধের শুরু হয়েছিল বলিউডের অন্যতম সেরা অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর। কঙ্গনার একটি ভিডিও নাড়িয়ে দিয়েছিল গোটা বলিউডকে। সম্প্রতি আবারও বিতর্কে জড়ালেন বলিউড কুইন। কিছুদিন আগেই মন্ত্যব্য করে বসেন ১৯৪৭ সালে দেশ স্বাধীনতা পায়নি ভিক্ষা পেয়েছিল ২০১৪ সালেই আসল স্বাধীনতা পেয়েছে দেশ।

এই মন্ত্যব্যের বিরুদ্ধে রীতিমত ঝড় ওঠে নেট দুনিয়ায়। তবুও কঙ্গনা তাঁর মন্ত্যব্য থেকে এক পাও পিছনে সরেননি। বরং চ্যালেঞ্জ করেছেন তাঁকে যদি কেও ভুল প্রমাণ করতে পারে তাহলে তিনি পদ্মশ্রী ফিরিয়ে দেবেন। তারপরই কঙ্গনার নিশানায় এলেন দেশের বাপু। এবার গান্ধীজিকে নিয়ে নিজের মত প্রকাশ করলেন অভিনেত্রী। তিনি বলেন আগে আমাদের বলা হত কেও এক গালে চড় মারলে আরেক গাল পেতে দিতে। এইভাবেই নাকি ভারতে স্বাধীনতা আসবে। এইভাবে কেউ স্বাধীনতা পায় না। ভিক্ষা পায়। নিজের হিরো নির্বাচিত করার আগে দুবার ভাবুন। তিনি আরও বলেন প্রত্যেক বছর জন্মবার্ষিকীতে তাঁদের শ্রদ্ধা জানালেই হয় না। ইতিহাস জানতে হয়। গান্ধীজি কোনোদিন নেতাজী এবং ভগত সিং কে সমর্থন করেন নি।

পাশাপাশি তিনি একটি পুরনো খবরের কাগজের প্রতিবেদন শেয়ার করেন যেখানে লেখা “ ‘Gandhi, others agreed to hand over Netaji’। অর্থাৎ ব্রিটিশদের হাতে নেতাজিকে তুলে দিতে সম্মতি দেন বাপু। প্রসঙ্গত স্বাধীনতার আগে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে চরমপন্থি পথ বেছে নিয়েছিল নেতাজি আর সেখানে নরমপন্থী ছিলেন গান্ধীজি এবং জহরলাল নেহেরু। সেই প্রেক্ষাপটকেই তুলে ধরেছেন অভিনেত্রী।