মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

চরমে কোহলি বনাম বোর্ড সংঘাত! কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ হোক, বিরাট-সৌরভকে তোপ কপিল দেবের

০৩:৪৫ পিএম, ডিসেম্বর ১৬, ২০২১

চরমে কোহলি বনাম বোর্ড সংঘাত! কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ হোক, বিরাট-সৌরভকে তোপ কপিল দেবের

ভারতীয় ক্রিকেটের অন্দরমহলে এখন চলছে জোর সংঘাত। ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে বোর্ড বনাম কোহলির দ্বন্দ্ব৷ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাওয়ার আগে বিসিসিআই-এর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন বিরাট। ক্যাপ্টেন্সি ইস্যু নিয়ে বিতর্ক যেন ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

দিন কয়েক আগেই বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি দাবি করেছিলেন, বিরাটকে টি-২০ অধিনায়কত্ব না ছাড়ার বিষয়ে অনুরোধ করেছিল বিসিসিআই। কিন্তু তিনি তা শোনেননি। আর সেক্ষেত্রে নির্বাচকরা সাদা বলের ক্রিকেটে ভিন্ন অধিনায়ক রাখতে চায়নি। তাই টি-২০ অধিনায়ক রোহিত শর্মার হাতেই ওয়ানডে ক্যাপ্টেন্সিও তুলে দেওয়া হয়েছে। এই প্রসঙ্গে বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে বিরাট জানিয়েছেন, বোর্ডের তরফে টি-২০ ক্যাপ্টেন্সি না ছাড়ার জন্য তাঁকে কোনও অনুরোধ করা হয়নি।

বিরাটের আরও দাবি, টি-২০ দলের নেতৃত্ব ছাড়ার আগে বোর্ড কর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে নিজের সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন। সেটা নিয়ে কারও মনে কোনও সংশয় ছিল না। তিনি এও বলেছিলেন যে টেস্ট ও একদিনের দলকে নেতৃত্ব দিতে চান। কিন্তু এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট দল ঘোষণার মাত্র ৯০ মিনিট আগে বিরাট জানতে পারেন যে, ওয়ানডে ফর্ম্যাটে আর অধিনায়ক থাকছেন না। তার আগে বোর্ডের তরফে তাঁর সঙ্গে সেভাবে যোগাযোগই করা হয়নি। তবে ক্যাপ্টেন কোহলি এও জানিয়েছেন, নয়া অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং কোচ রাহুল দ্রাবিড়ের দিকে পূর্ণ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবেন তিনি।

ক্যাপ্টেন্সি ইস্যু নিয়ে যখন বোর্ড বনাম কোহলির সংঘাত চরমে তখন এই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক কপিল দেব। সম্প্রতি এবিপি নিউজ-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হরিয়ানার হ্যারিকেন জানিয়েছেন, “এই সময়ে একে অন্যের দিকে আঙ্গুল তোলা ঠিক নয়। দক্ষিণ আফ্রিকা সফর আসছে। সেই সফরের জন্যই মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।" পাশাপাশি সৌরভ গাঙ্গুলি ও বিরাট কোহলির নাম উল্লেখ করে তিনি সরাসরি বলেন, "বোর্ডের সভাপতি অবশ্যই বড় মাপের ব্যক্তি। তবে টিম ইন্ডিয়ার ক্যাপ্টেনও কিন্তু কম সম্মানীয় নন। সৌরভ-কোহলি যেই হোক না কেন, একে অন্যের দিকে প্রকাশ্যে দোষারোপ করা মোটেই ভাল দেখাচ্ছে না। কোহলির উচিত পরিস্থিতি কন্ট্রোল করা। ও দেশের কথা ভাবুক। কে ভুল সেটা সময়ই বলবে। তবে এই মুহূর্তে সফরের ঠিক আগে বিতর্ক বাঁধানো ঠিক হচ্ছে না।" অর্থাৎ ক্যাপ্টেন্সি ইস্যু নিয়ে বিদেশ সফরের আগে যে অহেতুক বিতর্ক বাড়ছে, তাতে যে কপিল দেব বেশ অসন্তুষ্ট তা তাঁর কথাতেই স্পষ্ট।