শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

নিজের জন্মস্থানেই টেস্টে অনন্য এক নজির! কুম্বলেকে ছুঁলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই কিউয়ি স্পিনার

০৪:০৬ পিএম, ডিসেম্বর ৪, ২০২১

নিজের জন্মস্থানেই টেস্টে অনন্য এক নজির! কুম্বলেকে ছুঁলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই কিউয়ি স্পিনার

মুম্বইতেই তাঁর জন্ম। আর মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামেই অনন্য এক ইতিহাস লিখে ফেললেন আজাজ প্যাটেল। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে বিশ্বের তৃতীয় বোলার হিসেবে এক ইনিংসে ১০ উইকেট নেওয়ার নজির গড়লেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই কিউয়ি স্পিনার। রেকর্ড গড়ে আজাজ স্পর্শ করলেন জিম লেকার ও অনিল কুম্বলেকেও। কিউয়ি স্পিনারের আগে টেস্টের এক ইনিংসে ১০ উইকেট নেওয়ার নজির রয়েছে মাত্র লেকার এবং কুম্বলেরই।

https://www.instagram.com/p/CXDZNZcDthu/?utm_medium=copy_link

ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ভারতের মহম্মদ সিরাজকে আউট করেই ক্রিকেটীয় ইতিহাসে নাম তুলে ফেলেন আজাজ। সিরাজের উইকেটই তাঁর দশম উইকেট। বলাই বাহুল্য, এর আগের ৯টি উইকেটও তাঁরই নামে। মুম্বই টেস্টের প্রথম দিনে শুক্রবার আজাজ চার উইকেট নিয়েছিলেন। শনিবার সকালে তিনি তুলে নিলেন আরও ছয় উইকেট। এই টেস্টে ভারতের প্রথম ইনিংসে আজাজের শিকার শুভমান গিল থেকে শুরু করে ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলি, অজিঙ্ক্য রাহানে, চেতেশ্বর পূজারা, মায়াঙ্ক আগারওয়াল, ঋদ্ধিমান সাহা, জয়ন্ত যাদব, অক্ষর প্যাটেল, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও মহম্মদ সিরাজ। একমাত্র উমেশ যাদব এদিন ক্রিজে নট আউট ছিলেন।

https://www.instagram.com/reel/CXDanyUFHcu/?utm_medium=copy_link

জন্ম মুম্বইতে হলেও নিজের ৮ বছর বয়সে নিউজিল্যান্ড পাড়ি দেন আজাজ প্যাটেল। ভারতের মাটিতে এই প্রথমবার খেলতে নেমেছেন তিনি। আর নিজের জন্মস্থানে টেস্টের প্রথম দিন থেকেই বল হাতে দুর্দান্ত ছন্দে ছিলেন ৩৩ বছর বয়সী এই কিউয়ি স্পিনার। ওয়াংখেড়েতে প্রথম দিনের শেষে ভারতের স্কোর ছিল ৪ উইকেটে ২২১ রান। চারটি উইকেটই নেন আজাজ। শনিবার টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ফের তাঁর বিধ্বংসী বোলিংয়ের সামনে গুঁটিয়ে যায় ভারত। আর মাত্র ১০৪ রান যোগ করে ৩২৫ রানে অল আউট হয়ে যায় টিম ইন্ডিয়া।

https://www.instagram.com/p/CXDYfqKs5V3/?utm_medium=copy_link

যদিও এরপর ব্যাট করতে নেমে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে নিউজিল্যান্ড ব্যাটিং। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত, প্রথম ইনিংসে ৬২ রানে অলরাউট নিউজিল্যান্ড। সিরাজ, অশ্বিন ও অক্ষরের বিধ্বংসী বোলিংয়ের সামনে সুবিধেই করে উঠতে পারেননি কিউয়িরা। ফলে ভারতের সামনে ফলো অনের সুযোগ থাকছে৷ এই টেস্ট যদি না জেতেন, তাহলে যে তাঁর রেকর্ড কিছুটা হলেও জৌলুস হারাবে তা ভালোমতোই জানেন আজাজ। তবু এই অনন্য নজির গড়ে তাঁর নাম ক্রিকেটীয় ইতিহাসে ঠিকই উজ্জ্বল হয়ে থাকবে৷