মিড ডে মিলের খাবার নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত কলকাতা পুরসভার

মিড ডে মিলে রান্না খাবারের বদলে কলকাতা পুরসভার স্কুলগুলিতে এবার দেওয়া হবে ড্রাই ফুড। ইতিমধ্যেই এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে বলে জানান কলকাতা পুরসভার শিক্ষা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য অভিজিৎ মুখার্জি। জানা গিয়েছে, সামনের সপ্তাহ থেকেই এই নিয়ম চালু হবে স্কুলগুলিতে।

জানা গিয়েছে, ড্রাইফুড হিসাবে থাকছে ডাল, আলু, ছোলা। এছাড়া যেমন প্রতি ছাত্র পিছু চাল বরাদ্দ তা দেওয়া হবে। এর জন্য প্রতি পড়ুয়া বিছু বরাদ্দ করা হয়েছে ৭৮ টাকা। এতদিন পর্যন্ত কলকাতা পুরসভার স্কুলগুলিতে যে রান্না খাবার দেওয়া হতো, তা দিতো এজেন্সিরা। এবার এই সমগ্র কাজ নিজেরাই পরিচালনা করবে কলকাতা পুরসভা। কলকাতা পুরসভার তরফ থেকে পড়ুয়া পিছু বরাদ্দ অর্থ তুলে দেওয়া হবে শিক্ষক শিক্ষিকাদের হাতে। তাঁরাই বাজার করে সেই ড্ৰাই ফুড তুলে দেবেন পড়ুয়াদের অভিভাকদের হাতে।

কলকাতা পুরসভার শিক্ষা বিভাগের এক আধিকারিক জানান, দুয়ারে সরকারের কাজের থেকে শিক্ষক শিক্ষিকাদের নিস্তার পাওয়ার ওপরই নির্ভর করছে এই গোটা প্রক্রিয়া শুরু হওয়া। কারণ দুয়ারে সরকার – র কাজের জন্য অর্ধেক শিক্ষক শিক্ষিকা আটকে পড়েছেন। ফলে কখন তাঁরা টাকা নিতে আসবেন এবং কখনই বা বাজার করে স্কুল খুলে সেই খাবার বিলি করবেন তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছেন। তাই দুয়ারে সরকারের কাজ থেকে শিক্ষক শিক্ষিকাদের অব্যাহতি পাওয়ার পরই মিড ডে মিলে এই নতুন সিস্টেম শুরু হবে জানান ওই আধিকারিক। সেক্ষেত্রে সামনের সপ্তাহ থেকে এই সিস্টেম শুরু করা যাবে বলে আশাবাদী তিনি।

উল্লেখ্য, গতবছরই লকডাউন চলাকালীন পুরসভার স্কুলগুলোতেমিড ডে মিল নিশ্চিত করেছিল কলকাতা পুরসভা। ঠিক হয়েছেইল কলকাতা পুরসভার আওতাধীন স্কুলগুলিতে প্রায় ২৫ হাজার বাচ্চাকে দু’মাসের মিড ডে মিল এক সঙ্গে করে দিয়ে দেওয়া হবে। মোটামুটি বাচ্চা পিছু পাঁচ কেজি চাল, দুই থেকে তিন কিলো আলুর দেওয়ার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়। এই কাজ শুরু হয় গত বছর পয়লা বৈশাখের থেকে। বছরভর তা ঠিকঠাক ভাবে চললেও গোল বাঁধে গত দুমাসে। পুরসভার অন্দরের কিছু জটিলতার কারণে দুমাস ধরে বন্ধ রয়েছে মিড ডে মিল। এই অবস্থায় দ্রুত নতুন প্রসেসে মিড ডে মিল চালু করতে উদ্যোগী হয়েছে কলকাতা পুরসভা।