টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালি ইতিহাস অভনী লেখারার! নাম লিখিয়েছেন একাধিক রেকর্ডেও

টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালি ইতিহাস অভনী লেখারার! নাম লিখিয়েছেন একাধিক রেকর্ডেও
টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালি ইতিহাস অভনী লেখারার! নাম লিখিয়েছেন একাধিক রেকর্ডেও

২০২০ টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালী ইতিহাস গড়েছেন ভারতের অভনী লেখারা। প্রথমবার প্যারালিম্পিক্সের মঞ্চে পা রেখেই ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে সোনার পদক জিতেছেন তিনি। তারপরই সারা দেশ তাঁকে ভরিয়ে দিয়েছে শুভেচ্ছায়৷ তবে শুধু সোনা জয়ই নয়। পাশাপাশি সোমবার একাধিক রেকর্ডও গড়লেন অভনী। একঝলকে দেখে নেওয়া যাক সেগুলি।

সোমবার ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে ২৪৯.৬ স্কোর করে বিশ্বরেকর্ড গড়লেন সোনার মেয়ে অভনী৷ পাশাপাশি অলিম্পিক্সই হোক বা প্যারালিম্পিক্স, আপাতত প্রথম ভারতীয় মহিলা অ্যাথলিট হিসেবে সোনা জয়ের নজির একমাত্র অভনীরই। সেই সঙ্গে মাত্র ১৯ বছর বয়সে সোনা জিতে সবচেয়ে কম বয়সী কোনও ভারতীয় মহিলা অ্যাথলিট হিসেবে অলিম্পিক্স বা প্যারালিম্পিক্সের আসরে সোনা জিতলেন তিনি। এও এক অনন্য রেকর্ড।

টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালি ইতিহাস অভনী লেখারার! নাম লিখিয়েছেন একাধিক রেকর্ডেও
টোকিও প্যারালিম্পিক্সে সোনালি ইতিহাস অভনী লেখারার! নাম লিখিয়েছেন একাধিক রেকর্ডেও

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে ভয়াবহ দুর্ঘটনার মুখে পড়ে মাত্র ১১ বছর বয়সেই প্যারালাইজড হয়ে যান অভনী। শিরদাঁড়া গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাঁর। হারিয়ে ফেলেন হাঁটার ক্ষমতা। শুধু শারীরিকভাবেই নয়, ওই দুর্ঘটনা অভনীর উপর মানসিকভাবেও বেশ প্রভাব ফেলেছিল। তবে হাল ছেড়ে দেননি তিনি। লড়াই করেছেন দাঁতে দাঁত চেপে। এ সময় তাঁকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন অভিনব বিন্দ্রার আত্মজীবনী ‘এ শট অ্যাট হিস্ট্রি’। যা অভনীর জীবনটাই এরপর বদলে দেয়।

প্যারা অলিম্পিক্সে যোগ দেওয়ার আগে ২০১৫ সালে নিজের প্রথম রাজ্য চ্যাম্পিয়নশিপেও দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেন অভনী। সেখানে তিনি জেতেন ব্রোঞ্জ। এরপর ২০১৭ সালে আইপিসি প্যারা শুটিং বিশ্বকাপে রুপোর পদক গলায় ওঠে অভনীর। ২০১৯ সালেও মাত্র মাত্র ০.৩ পয়েন্টের জন্য সোনা হাতছাড়া জয় তাঁর। সেবারও রুপো জিতেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাঁকে। তবে সোনা জেতার খিদেটা সেই রয়েই গিয়েছিল। আজ প্যারালিম্পিক্সের মঞ্চে তাও পূরণ করলেন ‘সোনার মেয়ে’। বর্তমানে রাজস্থানের জয়পুরে একটি কলেজ থেকে আইন নিয়ে পড়াশোনা করছেন তিনি। তবে তাঁর পাখির চোখ আগামীতে দেশের মুখ আরও উজ্জ্বল করা। সেই লক্ষ্যেই স্থির রয়েছেন অভনী।