বাঁধা সত্ত্বেও, অবশেষে রাকেশ সিং-এর বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে সমর্থ লালবাজারের গোয়েন্দারা! শুরু পুলিশি অভিযান

বাঁধা সত্ত্বেও, অবশেষে রাকেশ সিং-এর বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে সমর্থ লালবাজারের গোয়েন্দারা! শুরু পুলিশি অভিযান
বাঁধা সত্ত্বেও, অবশেষে রাকেশ সিং-এর বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে সমর্থ লালবাজারের গোয়েন্দারা! শুরু পুলিশি অভিযান / ছবি সৌজন্যে- Facebook Posted By @bjprsingh

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ কোকেনকাণ্ডে ইতিমধ্যেই বিজেপি নেতা রাকেশ সিং-এর বাড়িতে হাজির হয়েছেন লালবাজারের বিশাল পুলিশ বাহিনী। কিন্তু তাঁদেরকে বাড়ির ভেতরে ঢুকতে বাঁধা দেওয়া হয়। বেশ কিছুক্ষণের চেষ্টার পরে, অবশেষে লাল বাজারের গোয়েন্দারা বাড়ির ভিতরে ঢুকতে সমর্থ হন। তাও প্রায় আড়াই ঘণ্টা পরে। একজন ক্যামেরাম্যান-সহ বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করেন জনা বারো গোয়েন্দা আধিকারিক।

আজ পুলিশ রাকেশ সিং-এর বাড়িতে ঢুকতে গেলে তাঁদের সঙ্গে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়েন বিজেপি নেতার ছেলে। রাকেশ সিং-এর ছেলে পুলিশের বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ তুলেছেন। এই মুহূর্তে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। এখনও রাকেশ সিংয়ের বাড়ির সামনে রয়েছে প্রচুর পুলিশ।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই কোকেনকাণ্ডে বিজেপি নেতা রাকেশ সিং-এর নাম জড়ায়। কোকেনকাণ্ডে ধৃত বিজেপি নেত্রী পামেলা গোস্বামী সংবাদমাধ্যমের সামনে রাকেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগ করেছিলেন। এরপর সোমবার কলকাতা পুলিশ কমিশনারকে মেল করেন বিজেপি নেতা রাকেশ সিং। তিনি রীতিমতো হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন। কলকাতা পুলিশ ও পামেলার বিরুদ্ধে মানহানির মামলার হুঁশিয়ারিও দিয়েছিলেন তিনি।

অন্যদিকে, পামেলা গোস্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে রাকেশ সিংকে তলব করে লালবাজার। মঙ্গলবার বিকেলে তাঁর কলকাতা পুলিশের সদর দফতরের উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল। অথচ জানা যায় যে, তিনি দিল্লি যাওয়ার কারণে হাজিরা দিতে পারবেন না। বিজেপি নেতা গ্রেফতারি এড়াতে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। তিনি হাজিরার নির্দেশে প্রত্যাহার করার আবেদন করেন। যদিও তাঁর সেই আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

এই পরিস্থিতিতে আচমকাই আজ দুপুরে রাকেশ সিং-এর বাড়িতে হাজির হয় কলকাতা পুলিশের বিশাল বাহিনী। প্রথমে সিআইএসএফ তাঁদের বাড়ির ভিতরে ঢুকতে বাধা দেয়। এরপর সামনে আসেন রাকেশ-পুত্র। পুলিশ আধিকারিকদের ভিতরে ঢুকতে তিনি বাধা দেন বলে অভিযোগ। তাঁর দাবি ছিল, পুলিশের কাছে সার্চ ওয়ারেন্ট বা যথাযথ কোনও নথি ছিল না। এই নিয়েই শুরু হয়, তর্কাতর্কি। লালবাজারের গোয়েন্দারা পরিষ্কার জানিয়ে দেন, তল্লাশি অভিযান হবেই। এমনটাও বলা হয় যে, প্রয়োজন পড়লে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকা হবে। সেক্ষেত্রে কারও কিছু করার থাকবে না। এই বাদানুবাদে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা।

প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর, অবশেষে বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে পারেন গোয়েন্দারা। এই মুহূর্তে শুরু হয়েছে তল্লাশি। বাড়ির প্রতিটি অংশ ভালো করে তল্লাশি করা হবে বলে জানা গিয়েছে। এদিকে তদন্তকারীদের অনুমান, হাজিরা এড়াতেই বাড়ি ছেড়েছেন কোকেনকাণ্ডে অভিযুক্ত বিজেপি নেতা রাকেশ সিং।

আরো পড়ুনঃ   বিশ্বের দরবারে আবারও মোদী স্তুতি! পরিবেশের স্থায়ী উন্নতিসাধনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কৃত প্রধানমন্ত্রী