‘শুভেন্দু অকৃতজ্ঞ, বেইমান, ঘাড় ধরে নন্দীগ্রাম থেকে তাড়াব! নন্দীগ্রাম দিবসে আক্রমণ কুণালের

‘শুভেন্দু অকৃতজ্ঞ, বেইমান, ঘাড় ধরে নন্দীগ্রাম থেকে তাড়াব! নন্দীগ্রাম দিবসে আক্রমণ কুণালের
‘শুভেন্দু অকৃতজ্ঞ, বেইমান, ঘাড় ধরে নন্দীগ্রাম থেকে তাড়াব! নন্দীগ্রাম দিবসে আক্রমণ কুণালের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আজ ‘অপারেশন সূর্যোদয়’-এর বর্ষপূর্তি। নন্দীগ্রাম দিবসে শহীদদের স্মরণ করল তৃণমূল কংগ্রেস। নন্দীগ্রাম দিবসের দিন শুভেন্দু অধিকারীকে তীব্র আক্রমণ করলেন কুণাল ঘোষ। শুধু কুণাল ঘোষই নন, নন্দীগ্রাম থেকে বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন অখিল গিরি, শেখ সুফিয়ানরা। নন্দী গ্রাম দিবসের দিন ফের তৃণমূল কংগ্রেসের নিশানায় রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

এদিন শুভেন্দু অধিকারীকে ‘অকৃতজ্ঞ, বেইমান, ন্রকের কীট’ বলে তীব্র ভাসায় আক্রমণ করেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। এদিন ভূমি উচ্ছেদ প্রতিরোধ কমিটির নন্দীগ্রামের ঘটনায় শহিদদের স্মরণে একটি সভার আয়োজন করে। এই কর্মসূচিতেই যোগদান করেন কুণাল ঘোষ, দোলা সেন, বিধায়ক তাপস রায়, রজ্যের মৎস্য মন্ত্রী অখিল গিরি, শেখ সুফিয়ান, জয়া দত্ত সহ অন্যান্যরা।

এই সভা থেকেই শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমণ করেন কুণাল ঘোষ। আজকের এই সভা থেকেই ‘শুভেন্দু হটাও, দেশ বাঁচাও’ স্লোগান তোলেন তিনি। এখানেই থেমে যাননি তিনি। তিনি বলেন, ‘তোমরা সমস্তটা ভগ করেছ। এরপর তুমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পিঠে ছুরি মেরেছ। তুমি বেইমান, গদ্দার।’ তৃণমূল মুখপাত্রের কথায় এখন শুভেন্দু অধিকারী হিন্দু হিন্দু করেন। কিন্তু নন্দীগ্রাম আন্দোলন হিন্দু-মুসলিম মিলে যৌথভাবে করেছিল। নন্দীগ্রামে মুসলিমদের অসম্মান করছেন শুভেন্দু। সেক্ষেত্রে কেন তিনি শহিদদের বেদীতে মালা দিতে চাইছেন!’

বুধবার সভামঞ্চ থেকে নন্দীগ্রামের মানুষের উদ্দেশ্যে কুণাল ঘোষ বলেন, ‘আপনাদের কাছে মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচনের সুযোগ এসেছিল। আপনারা মিস করেছেন।’ এরপরই বিরোধী দলনেতার উদ্দেশ্যে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে তৃণমূল মুখপাত্র বলেন, ‘নন্দীগ্রামে উপ-নির্বাচন হবে। পুনর্গণনা হলে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় ২২ হাজার ভোটে জিতবেন। শুভেন্দুকে ঘাড় ধরে নন্দীগ্রাম থেকে তাড়াব।’ এদিনের ভাষণের বেশির ভাগ সময়ই তৃণমূল নেতাদের নিশানায় ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে নন্দীগ্রামে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়কে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছেন শুভেন্দু অধিকারী। যদিও তাঁর বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ করেছে তৃণমূল। পরে এই অভিযোগে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে শাসকদল। তৃণমূল মুখপাত্র এদিন কটাক্ষের সুরে বলেন, শুভেন্দুকে রাজনীতিতে জন্ম দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর গোটা পরিবারকেও রাজনীতির মঞ্চে জন্ম দিয়েছেন তিনিই। নন্দীগ্রামের মানুষের উদ্দেশ্যে কুণাল বলেন, ‘লড়াই আপনারা করেছেন। শহিদের রক্ত বিক্রি করে নিজের রাজনৈতিক কেরিয়ার তৈরি করেছে শুভেন্দু।’

অন্যদিকে, এদিন তাপস রায় শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমণ করে বলেন, ‘রাজ্যে উপনির্বাচনে ৮০ কোম্পানি-৯০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী এসেছে রাজ্যে। নন্দীগ্রামে পুনর্গণনা কেন আটকাতে চাইছে। আবার গণনা হলে তবে তো বোঝা যাবে নির্বাচনের সময় কী হয়েছে না হয়েছে।’