বুথস্তরে সংগঠনের অভাবেই হার একুশের নির্বাচনে! মানল বিজেপি

বুথস্তরে সংগঠনের অভাবেই হার একুশের নির্বাচনে! মানল বিজেপি
বুথস্তরে সংগঠনের অভাবেই হার একুশের নির্বাচনে! মানল বিজেপি

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে ২০০ এর বেশি আসন পেয়ে জয়ী হবে বলে দাবি করেছিল বিজেপি। কিন্তু ফল প্রকাশের পর সামনে এসেছে তাঁদের ভরাডুবির চিত্র। শুক্রবার কার্যত নিজেদের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করে নিলেন দিলীপ ঘোষরা। বুথস্তরেই খামতি ছিল বলে এদিন মেনে নেয় গেরুয়া শিবির।

এদিন নয়া রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের সংবর্ধনা সভা ছিল বিজেপির দফতরে। সেখানেই নিজেদের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করে নেন গেরুয়া নেতৃত্ব। এদিন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “রাজ্যে তেড়েফুঁড়ে প্রচার করা সত্ত্বেও বিজেপি পিছিয়ে পড়ছে একটাই কারণে। সেটা হল বুথস্তরের সংগঠন। রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে হলে বুথস্তরের সংগঠন নিয়ে কাজ করতে হবে। হয়ত ১২ হাজার বুথে সেভাবে সংগঠন শক্ত করার সম্ভব নয়। কিন্তু বাকি বুথগুলিতে সংগঠনের কাজ করতে হবে”।

অন্যদিকে এই একই সুর শোনা গিয়েছে রাজ্য বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি দিলীপ ঘোষের গলাতেও। তিনি বলেন, “আমরা রাজ্যবাসীকে বিশ্বাসই করাতে পারিনি যে আমরা রাজ্যে ক্ষমতা দখল করতে পারি। রাজ্যের মানুষ ভেবেছে বিজেপি ১৫০ আসন পাবে না। ওঁরা ১০০ আসন পাওয়ার মতো দল। তাই আমাদের সরকারে আনেনি। বিরোধী আসনে বসিয়েছে। বিরোধী আসনে থেকেও মানুষের কাজ করা যায়। আমাদের এখন সেটাই করতে হবে।”

এদিন নিজেদের হার মেনে নেওয়ার পাশাপাশি সুকান্ত মজুমদারকে নতুন-পুরনো সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। দলের জেলাস্তরে অনেক নেতা এখন নিষ্ক্রিয় হয়ে আছেন। তাঁদের সংগঠনে জায়গা দিতে হবে। একইসঙ্গে তাঁদের সক্রিয় করে মিটিং-মিছিলে ডাকতে হবে।