কৃষকদের পিষে দিয়ে চলে যাচ্ছে গাড়ি! লখিমপুরের ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে

কৃষকদের পিষে দিয়ে চলে যাচ্ছে গাড়ি! লখিমপুরের ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে
কৃষকদের পিষে দিয়ে চলে যাচ্ছে গাড়ি! লখিমপুরের ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরির ঘটনায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে যোগী সরকার। অন্যদিকে, ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধের পাশাপাশি বিরোধী দলের রাজনৈতিক নেতাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করুক না কেন, লখিমপুরের ঘটনা নিয়ে রাজনৈতিক উত্তাপ কমার বদলে ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

কংগ্রেস থেকে শুরু করে, আম আদমি পার্টি, সমাজবাদী পার্টির নেতৃত্বরা ক্রমশ আক্রমণ করে চলেছেন যোগী আদিত্যনাথের সরকারকে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয় মিশ্র এবং তাঁর ছেলে আশিস মিশ্রের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিরোধীরা। ইতিমধ্যেই অজয় কুমার মিশ্রের ছেলের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও একাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে এরই মধ্যে লখিমপুর খেরির ঘটনা বলে দাবি করা একটি ভিডিও কংগ্রেসের পক্ষ থেকে টুইটারে শেয়ার করা হয়েছে। এই ভিডিওটি কংগ্রেস ছাড়াও আম আদমি পার্টির সাংসদ সঞ্জয় সিংহ-সহ আরও বেশ কয়েকজন নেতা শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। যদিও বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল-এর পক্ষ থেকে এই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করা হয়নি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিওটি শেয়ার করা হয়েছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে একটি গাড়ি বেশ কয়েকজন ব্যক্তিকে ধাক্কা ও চাপা দিয়ে চলে যায়। কংগ্রেস-সহ বিরোধী দলের নেতাদের দাবি, এই ভিডিওটি লখিমপুর খেরির ঘটনা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, লখিমপুর খেরিতে রবিবার বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন কৃষকরা। বিরোধী দল-সহ কৃষক নেতাদের দাবি শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন চলছিল। কিন্তু সেইসময় একটি গাড়ি এসে ধাক্কা দিয়ে বেশ কয়েকজনকে চাপা দিয়ে চলে গেলে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। কৃষকদের পক্ষ থেকে এও দাবি করা হয় যে, যে গাড়ি দিয়ে আন্দোলনরত কৃষকদের চাপা দেওয়া হয়, তাতেই ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় কুমার মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্র।

এদিকে, কংগ্রেসের তরফে তাদের অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেলে উক্ত ভিডিওটি পোস্ট করে লেখা হয় যে, ‘লখিমপুর খেরির অত্যন্ত উদ্বেগজনক একটি ভিডিও।’ যদিও ভিডিওতে কে গাড়ি চালাচ্ছে তা স্পষ্টভাবে দেখা যায়নি। তবে, গাড়িটি যে বেশ কয়েকজনকে আঘাত করে চলে যায়, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

আম আদমি পার্টির নেতা সঞ্জয় সিংও ভিডিওটি শেয়ার করে লেখেন, ‘এরপরেও আর কোন প্রমাণ প্রয়োজন? দেখুন ক্ষমতার অহংকারে চোর গুণ্ডারা কীভাবে কৃষকদের গাড়ির নিচে পিষে দিয়ে যাচ্ছে।’