জাল ভ্যাকসিন কাণ্ডে এবার বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের খোঁজে সিট গঠন লালবাজারের

জাল ভ্যাকসিন কাণ্ডে এবার বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের খোঁজে সিট গঠন লালবাজারের
জাল ভ্যাকসিন কাণ্ডে এবার বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের খোঁজে সিট গঠন লালবাজারের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কসবা ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে ধৃত দেবাঞ্জনকে জেরা করে, একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ্যে আসছে। এই জাল টিকাকরণের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। এই জাল টিকাকরণ নিয়ে ইতিমধ্যেই শাসকদলের বিরুদ্ধে নতুন উদ্যমে ময়দানে নেমে পড়েছে রাজ্য বিজেপি। রাজ্য সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছে বিজেপি।

বিতর্কের মাঝে এবার জাল ভ্যাকসিন কাণ্ডে সিট গঠন করল লালবাজার। এই কাণ্ডের সঠিক তদন্তের স্বার্থে ১০ সদস্যের বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট গঠন করা হল। গোটা বিষয়ে কোনও বৃহত্তর ষড়যন্ত্র লুকিয়ে আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখবেন এই ১০ সদস্যের বিশেষ তদন্তকারী দল।

জানা গিয়েছে, ডেপুটি কমিশনার ও গোয়েন্দা বিভাগের তরফে এই সিট গঠন করা হয়েছে। এই ১০ সদস্যের দলে থাকছেন প্রতারণা দমন, ব্যাঙ্ক জালিয়াতি দমন ও কলকাতা পুলিসের বিশেষ সেলের আধিকারিকরা। কীভাবে দেবাঞ্জন করোনা অতিমারি পরিস্থিতিতে মাস্ক, স্যানিটাইজার-সহ বিপুল পরিমাণ সামগ্রী সংগ্রহ করত এবং কীভাবেই বা শহরের বিভিন্ন জায়গায় ভুয়ো টিকাকরণ কর্মসূচি চলছিল? সেইসবই খতিয়ে দেখবেন এই ১০ সদস্যের বিশেষ তদন্তকারী দলের আধিকারিকরা।

উল্লেখ্য, এই জাল ভ্যাকসিন কাণ্ড নিয়ে বিজেপি শুরু থেকেই সরব হয়েছে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দাবি করেছেন যে, রাজ্যে ভ্যাকসিন সিন্ডিকেট চলছে। আবার আরেক বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর দাবি, এই ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডের তদন্ত করাতে হবে সিবিআইকে দিয়ে। আবার সিবিআই তদন্তের দাবির পাশাপাশি, এই কাণ্ডে কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের প্রধান ফিরহাদ হাকিমকেও নিশানা করেছেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। এই পরিস্থিতিতে এদিন স্বাস্থ্যভবনে হাজির হয়ে, স্বাস্থ্যসচিবের সঙ্গে দেখা করেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এদিন তিনি দলের সাংসদ সুভাষ সরকার, বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায়-সহ আরও বেশ কয়েকজন বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে স্বাস্থ্যভবনে হাজির হন। সেখানেই তিনি স্মারকলিপি দিয়ে এই জাল টিকাকরণ কাণ্ডের পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করেন। পাশাপাশি এই কাণ্ডে বড় ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেছেন।

এদিন শুভেন্দু অধিকারী অভিযোগ করেন যে, ‘এটা বিরাট বড় একটা ষড়যন্ত্র। বড় কোনও এজেন্সিকে দিয়ে তদন্ত করাতে হবে। সিবিআই সাংবিধানিক সংস্থা। সিবিআই যোগ্য এই তদন্তের জন্য। জাল টিকা নিয়ে এখনও কেউ মারা যাননি। কিন্তু গেলে তখন বলা হত, মোদীজি যে ভ্যাকসিন পাঠিয়েছেন, তা থেকেই এমন হয়েছে। আমাদের মনে হয়, এটা বড় ষড়যন্ত্র। তাই তদন্ত করতেই হবে।’ এর পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারী এই ঘটনার সঙ্গে শাসক দলের নেতা-নেত্রীদের জড়িত থাকার অভিযোগও করেছেন।

অন্যদিকে, আবার রাজ্যে টিকা বণ্টন নিয়ে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। টিকাদানে অনিয়মের অভিযোগ তুলে কলকাতা হাইকোর্টে সিবিআই তদন্তের আর্জি জানিয়েছেন আইনজীবী সন্দীপন দাস। জানা গিয়েছে, আগামী সপ্তাহেই এই মামলার শুনানি হবে।