লন্ডনের সরকারি দ্বিতীয় ভাষা বাংলা নয়, সমীক্ষায় উঠে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য

image source Google

বংনিউজ ডিজিটাল ডেস্কঃ গত তিনদিন ধরে ফেসবুকে প্রবল ভাইরাল হয়েছে ‘বাংলা ভাষা লন্ডনের দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে।’কিন্তু একটি সমীক্ষায় উঠে এলো তথ্যটি ভুল। লন্ডনের সরকারি দ্বিতীয় ভাষা কখনই বাঙলা নয়।

বিভিন্ন নিউজ পোর্টালে দাবী করা হয়, যেহেতু লন্ডনে ৭১৬০৯ জন মানুষ বাংলা বলতে ও লিখতে স্বচ্ছন্দ্যবোধ করে, তার ভিত্তিতেই এই গুরুতর সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে। এশিয়ান ভয়েস ডট কম নামের এক সংবাদপত্রে প্রথম এই খবর প্রকাশিত হয়। কিন্তু সমীক্ষায় দেখা গেছে ব্যাপারটি আদেও এরকম নয়।

২০১১এর ইউনাইটেড কিংডম সেনশাসে দেখা গেছে লন্ডনে প্রায় ২২২,১২৭ জন বাংলাদেশী বাস করেন। সারা লন্ডনের ৪৯.২% মানুষই বাঙলা জানেন। এদের মধ্যে আবার ৪৯.৫% বাঙালী তাদের প্রধান ল্যাঙ্গুয়েজ হিসাবে বেছেনেন বাঙলা কে। ৪৭.৯% মানুষ ইংরেজিতেই স্বচ্ছন্দ্য।

যেখানে বাঙালীই বাস করেন ২২২,১২৭ জন, সেখানে মাত্র ৭১,৬০৯ জন বাংলা ভাষাভাষির মানুষ রয়েছেন এ ধারণা সর্বৈব্য মিথ্যা। ২০১৬র শেষ সেনশাস রিপোর্টে আরবি কে লন্ডনের দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে মনোনীত করা হয়। সরকারিভাবে বাঙলা দ্বিতীয় ভাষা ঘোষিত না হলেও, রিপোর্টে দেখা গেছে,লন্ডনে ইংরেজির পর সবচেয়ে বেশি বাঙলায় কথা বলে মানুষ। অর্থাৎ বাঙলা লন্ডনের দ্বিতীয় সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা। লন্ডনের পরবর্তী দ্বিতীয় ভাষা বাঙলা হবে কিনা তা জানতে ২০২১ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  ‘প্রতিরোধের নয় এবার প্রতিশোধের রাজনীতি হবে’: দিলীপ ঘোষ

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.