হালিশহর থেকে হুইল চেয়ার ঠেলে ব্রিগেডে যোগ দিলেন লটারি বিক্রেতা রবি দাস, দেখে নিন ভিডিও

হালিশহর থেকে হুইল চেয়ার ঠেলে ব্রিগেডে যোগ দিলেন লটারি বিক্রেতা রবি দাস, দেখে নিন ভিডিও
হালিশহর থেকে হুইল চেয়ার ঠেলে ব্রিগেডে যোগ দিলেন লটারি বিক্রেতা রবি দাস, দেখে নিন ভিডিও / ছবি সৌজন্যেঃ Screengrab from Facebook Video Posted By @palodhisauravofficial

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ রাজ্যের দৌড়গোড়ায় ২০২১ এর বিধানসভা ভোট। রাজ্যের শাসক দলে কে আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিরোধ। রাজনৈতিক দলগুলি তাঁদের অবস্থান পাকাপক্ত করতে আসরে নেমে পড়েছে। আর আজ ২৮ শে ফেব্রুয়ারি বামেদের ব্রিগ্রেড চলো অভিযান। এই অভিযানে বামেদের সাথে থাকবে কংগ্রেস ও আব্বাস সিদ্দিকর আইএসএফ। আজ কলকাতায় এক উল্লেখ্যযোগ্য সভা হতে চলেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। বিভিন্ন দাবি দাবা নিয়ে সরকার গড়ার লক্ষ্যে মহা জোটের ডাকা ব্রিগেড সমাবেশের উদ্দেশ্যে রাজ্যের প্রতিটা জেলা থেকে সকাল থেকেই রওনা হয়েছে দলের কর্মীরা। অন্যদিকে ব্রিগ্রেডে যোগ দেওয়ার জন্য পাঁচ দিন আগে থেকে রওনা দিয়েছেন হালিশহরের এক লটারি বিক্রেতা রবি দাস।

প্রসঙ্গত তিনি ২৩ শে ফেব্রুয়ারি রওনা দেন হালিশহর থেকে। আর তিনি সমাবেশের স্থানে পৌঁছান ২৬ শে ফেব্রুয়ারি। তবে তিনি শারীরিক ভাবে সক্ষম নন। তাঁর দুটি পা পঙ্গু। তিনি পেশায় একজন লটারি বিক্রেতা। আর তিনি এই অবস্থাতেও তাঁর হুইল চেয়ার ঠেলে ৭০ কিমি পথ অতিক্রম করে যোগ দিলেন ব্রিগেডে। সম্প্রতি এই ভিডিও সৌরভ পালোধী তাঁর ফেসবুক পেজ এ পোষ্ট করেন। ভিডিও তে দেখা যাচ্ছে হালিশহর থেকে আসা রবি দাসের হুইল চেয়ার জুড়ে বামেদের দলীয় পতাকা। এছাড়া তাঁর মুখে রয়েছে মাক্স। তিনি কী বললেন, তা একনজরে দেখে নিন..

তিনি জানান, এর আগেও তিনি প্রতি সমাবেশে এসেছেন। এছাড়া তিনি বামেদের জয়ের আশাও করেন। তিনি মনে করেন তৃণমূল ও বিজেপি রাজ্যের শাসক দল হিসেবে থাকলে বাংলাকে রক্ষা করা যাবে না। বাংলাকে রক্ষা করতে পারবে বামেরাই। এরপরই তিনি বলেন, আগে রাজ্যে লটারির খেলা পিছু ১ লক্ষ টাকার কম ট্যাক্স দিতে হত। তবে বর্তমানে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৫ লক্ষ টাকা হয়ে গেছে। এছাড়া তিনি মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নের কথা তুলে বলেন, উনি বাংলার উন্নয়ন করছে না। নিজের ভাইপোর উন্নয়ন করে চলেছে। এছাড়া তিনি বলে বামেরা এতো বছর সরকার চালিয়েছে। তবে কেউ বলতে পারবেন না যে বামেদের কোনও নেতার নামে কোনও কেলেঙ্কারি আছে। এভাবেই তিনি সেদিন আরও নানা কথা বলেন। তিনি তাঁর মনের জোরকে সম্বল করেই এত পথ অতিক্রম করে এসেছেন নিজের দলোকে সম্মান জানিয়ে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.