‘প্রয়োজনে এরকম আরও ফোন করব!’ প্রলয় পাল ‘ফোন’কাণ্ডে তৃণমূল সুপ্রিমোর সাফ জবাব

‘প্রয়োজনে এরকম আরও ফোন করব!’ প্রলয় পাল ‘ফোন’কাণ্ডে তৃণমূল সুপ্রিমোর সাফ জবাব
‘প্রয়োজনে এরকম আরও ফোন করব!’ প্রলয় পাল ‘ফোন’কাণ্ডে তৃণমূল সুপ্রিমোর সাফ জবাব/ ছবি সৌজন্যে- Screengrab from Facebook Video Posted By @MamataBanerjeeOfficial

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে দ্বিতীয় দফার ভোটের আগে শেষবেলার নির্বাচনী প্রচার সারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উল্লেখ্য, দ্বিতীয় দফায় নন্দীগ্রামে ভোট রয়েছে। এই কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাঁর বিপরীতে বিজেপি থেকে রয়েছেন একদা তাঁর ঘনিষ্ঠ নেতা তথা প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

আজ ১ এপ্রিল দ্বিতীয় দফার ভোটের আগে শেষ মুহূর্তের প্রচারে, টেঙ্গুয়ার সভা থেকে তমলুক সাংগঠনিক জেলার সহ সভাপতি প্রলয় পাল ‘ফোন’কাণ্ডে মুখ খুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উল্লেখ্য, প্রথম দফার ভোটের দিন বিজেপি নেতা প্রলয় পাল এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথোপকথনের সেই অডিও বার্তা প্রকাশ্যে আসতেই রাজ্য-রাজনীতিতে শোরগোল পড়ে যায়।

মঙ্গলবার এই অডিও ক্লিপ প্রসঙ্গে টেঙ্গুয়ার সভায় নিজের অবস্থান স্পষ্ট করলেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি স্পষ্ট বললেন যে, তিনি প্রলয় পালকে ফোন করে কোনও অন্যায় করেননি। তিনি এও জানিয়েছেন যে, আগামীদিনে প্রয়োজন পড়লে, তিনি এরকম আরও অনেককে ফোন করবেন তিনি। উল্টে তিনি প্রলয় পালের শাস্তি দাবি করেছেন। তিনি বলেন যে, ‘গোপন কথোপকথন রেকর্ড করে ছড়ানোর দায়ে ওই বিজেপি নেতারই শাস্তি হওয়া প্রয়োজন।’

প্রথম দফার ভোটের দিন ওই অডিও প্রকাশ্যে এনে, পদ্মশিবির থেকে অভিযোগ করা হয় যে, ‘তাদের দলের নেতাকে ফোন করে সাহায্য প্রার্থনা করছেন মুখ্যমন্ত্রী।’ এই প্রতিবাদে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং, শিশির বাজোরিয়া-সহ অন্যরা। যদিও বংনিউজ সেই অডিও ক্লিপের সত্যতা যাচাই করেনি।

তবে, ওই অডিও ক্লিপে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রলয়ের কাছে ভোটের কাজে সাহায্য চাইতে শোনা গিয়েছিল। এই অডিও ক্লিপ প্রকাশ্যে আসতেই, তা নিয়ে তৃণমূলের শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতাকে বারবার সাফাই দিতে দেখা গেলেও, মমতা এতদিন নীরবতা পালন করেছিলেন সেই প্রসঙ্গে। ফোনালাপ সামনে আসতেই দলের তরফে কুণাল ঘোষ, সুব্রত মুখোপাধ্য়ায় জবাব দিয়েছিলেন।

তবে, এবার এই প্রসঙ্গে মুখ খুলেই মমতা বলেন যে, ‘একটা কথোপকথন ভাইরাল করেছে। খবর ছিল, কেউ কথা বলতে চায়। তাই কথা বলেছি। ওর অনুরোধে ফোন করলে দোষ কোথায়? সে ভাইরাল করলে তাঁর শাস্তি হওয়া উচিত। এরকম আমি আরও ফোন করব।’

অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা হওয়ার কথা সেদিনই স্বীকার করে নিয়েছিলেন বিজেপি নেতা প্রলয় পাল। যদিও তিনি যে তৃণমূল নেত্রীর কোনও অনুরোধই রাখতে পারবেন না সেকথা নেত্রীকে স্পষ্ট দিয়েছিলেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.