ভবানীপুরে জনসংযোগ বাড়াতে শেষ মুহূর্তে মাস্টার স্ট্রোক মমতার

ভবানীপুরে জনসংযোগ বাড়াতে শেষ মুহূর্তে মাস্টার স্ট্রোক মমতার
ভবানীপুরে জনসংযোগ বাড়াতে শেষ মুহূর্তে মাস্টার স্ট্রোক মমতার

আগামীকাল প্রচার শেষ হচ্ছে ভবানীপুরে। তার আগেই জনসংযোগের ক্ষেত্রে মাস্টার স্ট্রোক দিল তৃণমূল। শনিবার সন্ধ্যায় দেই ভবানীপুরবাসীর উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছাপত্র পাঠালেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুভেচ্ছাপত্র বাংলা এবং ইংরেজি উভয় ভাষাতেই লেখা হয়েছে। শুভেচ্ছা বার্তার পাশাপাশি ওই চিঠিতে ঘরের মেয়ে স্লোগান নিয়ম উল্লেখ করা হয়েছে দলের তরফে।

উপ নির্বাচনের ক্ষেত্রে ভবানীপুর যে হাইভোল্টেজ কেন্দ্র তা বলার অপেক্ষা রাখে না। পরিস্থিতিতে ভবানীপুর থেকে জেতার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে শাসক বিরোধী উভয় দল। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলই নিজেদের স্ট্র্যাটেজি নিয়ে প্রচারের শেষ মুহূর্তে মরণকামড় দিচ্ছে। শনিবারও সেইরকমই প্রচার সেরেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বেলায় ভবানীপুরের বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে একটি শুভেচ্ছা পত্র পাঠিয়েছেন তিনি।

শুভেচ্ছা পত্রে লেখা রয়েছে, “ভবানীপুর কেন্দ্রকে ঘিরে আমার পথ চলা শুরু হয়েছে। দুঃসময়-সুসময়-উৎসবে আন্দোলনে মানুষের পাশে থাকার জন্য সব সময় আপনাদের আশীর্বাদ ও ভালোবাসা পেয়েছি।আজ আমি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী সেটাও ভবানীপুরের জন্যই”। এরপর এই চিঠিতে আসন্ন উপনির্বাচনে ভবানীপুরবাসীর কাছ থেকে ভোট প্রার্থনা করেছেন তিনি।

করোনা আবহে উপনির্বাচন হওয়ায় বিধি নিষেধ জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। ঊর্ধ্বে বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার এর ক্ষেত্রেও জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। এতে জনসংযোগ অনেকখানি ধাক্কা খেয়েছে বলে মত রাজনৈতিক মহলের। এই পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের ঘরে পৌঁছে যাওয়ার জন্য তৃণমূল কংগ্রেসের এই শুভেচ্ছাপত্র কে হাতিয়ার করা একেবারেই অভিনব উদ্যোগ বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল।