বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই, ২০২২

কবে থেকে চালু হচ্ছে ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডার’ প্রকল্প? কীভাবে আবেদন করবেন? কী জানালেন মুখ্যমন্ত্রী?

০৯:০২ পিএম, আগস্ট ১২, ২০২১

কবে থেকে চালু হচ্ছে ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডার’ প্রকল্প? কীভাবে আবেদন করবেন? কী জানালেন মুখ্যমন্ত্রী?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মুখ্যমন্ত্রীর অন্যান্য প্রকল্পেরই একটি ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডার’ প্রকল্প। ১৬ আগস্ট থেকে বাংলায় দুয়ারে সরকারের দ্বিতীয় পর্ব শুরু হচ্ছে। তবে, আপাতত বন্যা দুর্গত এলাকায় বসছে না দুয়ারে সরকার ক্যাম্প। জানা গিয়েছে, বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলে, সেই সমস্ত এলাকায় দুয়ারে সরকারের ক্যাম্প বসবে। এবারের দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের জন্য আলাদা কাউন্টার থাকছে। পাশাপাশি ফর্ম ফিল আপের জন্য থাকছে বিশেষ নিয়ম।

সেপ্টেম্বরের প্রথম দিন থেকেই রাজ্যে চালু হতে চলেছে এই প্রকল্প। কিন্তু কোথাও আবেদন পত্রে কাটমানি নেওয়া, তো কোথাও ফর্ম নিতে গেলে বাড়ির বকেয়া ট্যাক্স জমা দিতে বলা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে আজ মুখ্যমন্ত্রী এই প্রকল্প নিয়ে যাবতীয় বিষয় স্পষ্ট করলেন। কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়?

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ক্ষেত্রে কোনও ভুল বোঝাবুঝি নয়। চিন্তা নয়। বিনামূল্যে ফর্ম পাওয়া যাবে। ক্যাম্প থেকে একটা ইউনিক নম্বর দেওয়া থাকবে। প্রথমে যে মা-বোনেরা আসবেন, তাঁরা লক্ষ্মীর ভাণ্ডার ক্যাম্পে যাবেন। আগে যেমন দুয়ারে সরকারে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হত। তার পর আর একটা ক্যাম্পে যেতেন। আমরা এটাকে সরলীকরণ করেছি।’

মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘দুয়ারে সরকারের লক্ষ্মীর ভাণ্ডার ক্যাম্পে যাবেন। সেই ক্যাম্পে যে সরকারি অফিসার থাকবেন তিনি একটা ফর্ম দেবেন। সেই ফর্মে একটা নির্দিষ্ট নম্বর থাকবে। তাঁর কাছেই সেই নম্বরটা রেকর্ড করা থাকবে। এই ফর্মের ডুপ্লিকেট করা যাবে না। এই ফর্ম ছাড়া অন্য কোনও ফর্ম জমা নেওয়া হবে না। যাতে এটা কেউ অপব্যবহার করতে না পারেন সেই জন্য। বিনামূল্যে ফর্ম পাওয়ার পর সেটা ওখানে পূরণ করে জমা দেবেন। ফর্মের সাথে একটা ইউনিক নম্বর থাকবে। সেই নম্বরটা সরকারের কাছে থাকবে। এটা আধার কার্ডের সঙ্গেও লিঙ্ক করে দেওয়া হবে। কম্পিউটার জেনারেটেড নম্বর। তাই নকল করে কেউ কিছু করতে পারবেন না। এই ইউনিক নম্বরটাই গ্রহণ করা হবে। যদি বাইরে থেকে কেউ ফর্ম ফিলআপ করার জন্য জোগাড় করেন বা অন্য এজেন্সি থেকে ২৫-৩০টা ফর্ম ছাপিয়ে নিয়ে বিতরণ করেন, সেগুলো কিন্তু গ্রহণ করা হবে না। একমাত্র দুয়ারে সরকারের লক্ষ্মীর ভাণ্ডার ক্যাম্প থেকে যে ফর্ম পাবেন , সেটাই গ্রহণ করা হবে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের টাকা আবেদন করতে পারবেন না কারা, তাও এদিন জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘যাঁরা সরকারি চাকরি করেন, পেনশন পান কিংবা ভাল বেসরকারি চাকরি করেন বা পেনশন পান, তাঁরা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন না। অন্যরা মাসে ৫০০ এবং তফসিলি জাতি উপজাতি সম্প্রদায়ভুক্ত মহিলারা মাসিক ১ হাজার টাকা পাবেন।’

এছাড়া মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও বলেন যে, ‘উত্তর ২৪ পরগণায় রটিয়ে দেওয়া হয়েছে, লক্ষ্মীর ভাণ্ডার পেতে গেলে বাড়ির ট্যাক্স দিতে হবে। এরকম কোনও বিজ্ঞপ্তি সরকারের নেই। কোনও বাধ্যবাধকতা নেই। যদি এরকম কেউ করে, শুনবেন না।’ এই বিষয়ে কোনও অভিযোগ থেকে থাকলে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর অফিসে টোল ফ্রি নম্বরে জানাতে আবেদন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। ১০৭০/২২১৪৩৫২৬-এই নম্বরে। বাংলা সহায়ক কেন্দ্রেও অভিযোগ করা যাবে বলেও জানানো হয়েছে।