এবার কি টার্গেট হরিয়ানা? দিল্লিতে আজ কীসের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

এবার কি টার্গেট হরিয়ানা? দিল্লিতে আজ কীসের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
এবার কি টার্গেট হরিয়ানা? দিল্লিতে আজ কীসের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ত্রিপুরা, উত্তরপ্রদেশ, গোয়ার পর এবার কি তবে লক্ষ্য উত্তর ভারত? এদিন দিল্লিতে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে কীর্তি আজাদ, অশোক তনওয়ার এবং পবন ভার্মার তৃণমূলে যোগদানের পর সেই পরিকল্পনাই স্পষ্ট হচ্ছে। বিশেষত হরিয়ানার প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা অশোক তনওয়ারের যোগদানের পর তাঁর অনুগামীদের উদ্দেশে নিজের বার্তায় মমতা নিজেই জানিয়েছেন, খুব দ্রুত তিনি হরিয়ানায় যেতে চান। হরিয়ানায় তৃণমূলের সভা ডাকারও নির্দেশ দিয়েছেন আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আজ তৃণমূলে যোগদানের জন্য দিল্লিতে নিজের অনুগামীদের সঙ্গে করে এনেছিলেন অশোক তনওয়ার। তাঁর অনুরোধেই এদিন তৃণমূলে যোগদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তখনই তিনি বলেন, তৃণমূলের সংগঠন গড়ে তুলতে গোটা হরিয়ানা জুড়ে ঘুরবেন অশোক। এর পাশাপাশি দিল্লি থেকে ফিরে গিয়েই হরিয়ানায় দলের সংগঠন গড়ে তুলতে সবাইকে কাজ শুরু করার নির্দেশ দেন তৃণমূলনেত্রী৷ আর দ্রুত সভা করারও নির্দেশ দেন তিনি। তিনি যে হরিয়ানায় যেতে আগ্রহী সেকথাও পরিষ্কার জানিয়েছেন।

তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘আপনাদের সবাইকে নিয়ে চলব৷ এখান থেকে ফিরে গিয়েই কাজ শুরু করুন৷ যত দ্রুত আমায় ডাকবেন, তত দ্রুত হরিয়ানায় আসব৷ দিল্লি থেকে হরিয়ানার দূরত্ব সামান্যই৷ দেশের জন্য বিজেপি-কে হারাতে আপনারা বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ৷’

অন্যদিকে, এদিন তিনি জানিয়েছেন, অশোক তনওয়ার তৃণমূলের প্রচারে খুব শিগগিরই গোয়া যাবেন। কলকাতায় এসেও দলের গুরুত্বপূর্ণ সভায় যোগ দেবেন তিনি। উল্লেখ্য, হরিয়ানার প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অশোক তনওয়ার সিরসা কেন্দ্র থেকে লোকসভার সাংসদও নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু ২০১৯ সালে হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচনের আগে টিকিট বণ্টনে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে কংগ্রেস ছাড়েন তিনি৷ এরপর ২০২১ সালে নিজের দল আপনা ভারত মোর্চা গঠনের ঘোষণা করেছিলেন অশোক। তবে, শেষ পর্যন্ত অবশ্য তৃণমূলেই যোগদান করলেন প্রাক্তন এই কংগ্রেস নেতা। অশোকের জনভিত্তিকে কাজে লাগিয়েই হরিয়ানায় নিজেদের পায়ের তলার মাটি শক্ত করতে চাইছে তৃণমূল৷