লক্ষ্য মেদিনীপুর, আজ পরপর তিনটি নির্বাচনী সভা করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

লক্ষ্য মেদিনীপুর, আজ পরপর তিনটি নির্বাচনী সভা করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
লক্ষ্য মেদিনীপুর, আজ পরপর তিনটি নির্বাচনী সভা করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় / নিজস্ব ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এবারের বাংলার বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৮ দফায়। রাজ্যে প্রথম দফার ভোট শুরু হচ্ছে ২৭ মার্চ। এই আবহে আজ ফের রাজ্যের নির্বাচনী প্রচারে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ২৭ মার্চ প্রথম দফাতেই ভোট হবে পুরুলিয়া জেলাজুড়ে। তার আগে এই জেলায় বৃহস্পতিবার বিধানসভা কেন্দ্র ভাঙড়ায় নির্বাচনী সভা করতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নবকুঞ্জের মাঠে হবে এই জনসভা। যার শেষ বেলার প্রস্তুতি এখন তুঙ্গে।

অন্যদিকে আজই পশ্চিম মেদিনীপুরে ৩ টি জনসভা করবেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম নির্বাচনী সভা করবেন গড়বেতা বিধানসভা এলাকার গোয়ালতোড়ের আমলাশুলিতে। দ্বিতীয় সভা কেশিয়াড়ি বিধানসভার ঔরঙ্গাবাদে। এবং সেখান থেকে তিনি যাবেন খড়গপুর গ্রামীণ বিধানসভা এলাকায়। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের নজরে পশ্চিম মেদিনীপুর আসন।

রাজ্যের শাসকদল এই বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রাম জেলায় মোট ১৯ টি আসনের মধ্যে ১০ টি আসনে নতুন মুখ নিয়ে এসেছে। এর মধ্যে আবার তারকা প্রার্থীও রয়েছেন। এদের মাধ্যেমেই বাংলার বিধানসভা নির্বাচনে এইসব আসনে বাজিমাত করতে চায় রাজ্যের শাসকদল। যেমন- মেদিনীপুর আসনের প্রার্থী করা হয়েছে জুন মালিয়াকে। ডেবরা বিধানসভায় সেলিমা খাতুনের জায়গায় প্রার্থী করা হয়েছে প্রাক্তন আইপিএস হুমায়ুন কবীরকে। সবং বিধানসভা কেন্দ্রে প্রার্থী করা হয়েছে সাংসদ মানস ভুঁইয়াকে৷ পশ্চিম মেদিনীপুরের পিংলা বিধানসভা আসনে সৌমেন মহাপাত্র-এর বদলে নিয়ে আসা হয়েছে অজিত মাইতি’কে। এরকম বেশ কিছু পরিবর্তন করা হয়েছে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে।

তাই এমনই নয়া চমক নিয়েই আজ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় সভা করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ বিজেপির বিরুদ্ধে বিভাজনের রাজনীতির প্রসঙ্গ তুলেও সোচ্চার হতে পারেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

উল্লেখ্য, গত বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ১৫ টি আসনের মধ্যে তৃণমূলের দখল নিয়েছিল ১৩ টি আসনের। তবে, লোকসভা নির্বাচনে ততোটা ভাল ফল করতে পারেনি রাজ্যের শাসকদল। গত ২ বছর ধরে তৃণমূলের নেতা সুব্রত বক্সী সাংগঠনিক সময় দিয়েছেন এই জেলায়। এবার সংগঠনের পুরানো জোরকে কাজে লাগিয়ে জয়ের ফসল তুলে ধরতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.