টুইটে নন্দীগ্রাম দিবসে ‘শহিদ’ স্মরণ মুখ্যমন্ত্রীর, বললেন, এখানে প্রার্থী হতে পেরে তিনি গর্বিত

টুইটে নন্দীগ্রাম দিবসে ‘শহিদ’ স্মরণ মুখ্যমন্ত্রীর, বললেন, এখানে প্রার্থী হতে পেরে তিনি গর্বিত
টুইটে নন্দীগ্রাম দিবসে ‘শহিদ’ স্মরণ মুখ্যমন্ত্রীর, বললেন, এখানে প্রার্থী হতে পেরে তিনি গর্বিত

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ দেখতে দেখতে ১৪ বছর হয়ে গেল। ১৪ বছর আগে, ২০০৭ সালে, আজকের দিনেই অর্থাৎ ১৪ মার্চ পূর্ব মেদিনীপুরের এক অখ্যাত গ্রাম খবরের শিরোনামে উঠে এসেছিল।

তৎকালীন বাম জামানায় ভূমি উচ্ছেদ আন্দোলনকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল রাজ্য-রাজনীতি। যে আন্দোলনের উপর ভিত্তি করেই, ৩৪ বছরের বাম শাসনের অবসান ঘটেছিল। বাংলার শাসনক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস। আজ সেই নন্দীগ্রাম দিবস উপলক্ষে সেদিনের আন্দোলনের কথা স্মরণ করে, টুইট করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মূলত আজকের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের টুইট ছিল নন্দীগ্রাম আন্দোলনের শহীদ পরিবার ও সেদিনের সেই আন্দোলনের পুরোভাগে থাকা মানুষদের উদ্দেশ্যে।

১৪ বছর আগে আজকের দিনেই ১৮ জন আন্দোলনকারী নিহত হন। আজ টুইটে সেই জায়গার অতীত ইতিহাস তুলে ধরে ‘শহিদ’দের স্মরণ করেন, শ্রদ্ধা জানান মুখ্যমন্ত্রী। আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটে লেখেন যে, ‘নন্দীগ্রামে ২০০৭ সালের ঘটনায় অনেক নিরীহ গ্রামবাসীকে গুলি করে খুন করা হয়। অনেকের দেহও খুঁজে পাওয়া যায়নি। রাজ্যের ইতিহাসে কলঙ্কিত অধ্যায় ছিল সেদিন। যাঁরা সেদিন শহিদ হয়েছিলেন, তাঁদের শ্রদ্ধা জানাই’।

এরপরই তিনি লেখেন যে, প্রতিবারের মতো এবারও এই দিনটি কৃষক দিবস হিসেবে পালিত হয়েছে। এর পাশাপাশি কৃষকদের পুরস্কৃতও করা হবে কৃষকরত্ন পুরস্কারে। তিনি লেখেন, ‘প্রতি বছর এই দিনটিকে কৃষক দিবস হিসেবে পালন করি আমরা। কৃষকরত্ন পুরস্কারও দেওয়া হয় আমাদের পক্ষ থেকে। কৃষকরা আমাদের গর্ব। তাঁদের সর্বাঙ্গীণ বিকাশসাধনের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

পাশাপাশি তিনি টুইটে এও উল্লেখ করেন যে, ‘নন্দীগ্রামের ভাই-বোনদের উৎসাহে, সেখানকার মানুষদের শ্রদ্ধা জানাতেই, সেখান থেকে লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি। আগামীদিনে নন্দীগ্রামের শহিদ পরিবারগুলিকে সঙ্গে নিয়েই, বাংলা বিরোধী শক্তির সঙ্গে লড়বো।’ তিনি বলেন যে, এমন একটি কেন্দ্র থেকে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে লড়াইয়ের সুযোগ পেয়ে তিনি গর্বিত বোধ করছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.