তৃতীয় ইনিংস শুরুর পর এই প্রথম সাংগঠনিক বৈঠকে বসতে চলেছেন মমতা

তৃতীয় ইনিংস শুরুর পর এই প্রথম সাংগঠনিক বৈঠকে বসতে চলেছেন মমতা
তৃতীয় ইনিংস শুরুর পর এই প্রথম সাংগঠনিক বৈঠকে বসতে চলেছেন মমতা

তৃতীয় দফায় মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের পর এই প্রথম দলের সব সাংসদ ও বিধায়কদের এক বৈঠকে ডেকে পাঠালেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী এই সংগঠনিক বৈঠক ডেকেছেন দলনেত্রী। তৃণমূল ভবনে এই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে সাংগঠনিক পদাধিকারীদেরও।

এই করোনায় লকডাউন পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীর তড়িঘড়ি এহেন উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডাকা বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে একুশে জুলাই এর পর্যালোচনা করতেই ডাকা হয়েছে এই বৈঠক। কারণ করোনার বাড়বাড়ন্তে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন বিজয় মিছিল এবার স্থগিত থাকবে। এই বিজয় উৎসব হবে একুশে জুলাইয়ে। তাই অনেকেই মনে করছেন সেই দিনটিকে ও সেই সভাকে স্মরণীয় করে রাখতে দলের সব সাংসদ বিধায়ককে নিয়ে বৈঠক ডেকেছেন তৃণমূলনেত্রী।

কিছুদিন আগে তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ দাবি করেন, বিজেপির ৩সাংসদ ও ১১জন বিধায়ক তৃণমূলে আসতে চাইছেন। বেসরকারি মতে অবশ্য সেই সংখ্যাটা আরও বেশি। খুব কম করেও ৮জন সাংসদ আর ৩১জন বিধায়ক তৃণমূলে আসতে চাইছেন। তবে দলের একাংশ এই দলবদলুদের আর দলে চাইছেন না। সেক্ষেত্রে এদের ফেরালে দলের কে কী ভাবে বিষয়টি নেবে সে সব খতিয়ে দেখতে চাইছেন নেত্রী।

অন্যদিকে আবার অনেকেই মনে করছেন, তৃতীয়বারের জন্য তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর বেশকিছু নেতা-নেত্রী ঘরওয়াপসি করতে চাইছেন। এই মুহূর্তে তাদের নিয়ে দল কি সিদ্ধান্ত নেয় সেই নিয়ে ডাকা হয়েছে বৈঠক।এই বৈঠকের দিকে বিজেপির বিশেষ করে নজর থাকবে। একইসঙ্গে নতুন করে বিজেপির শিবির থেকে কোন কোন সাংসদ আর বিধায়ক তৃণমূলে ভিড়তে চলেছেন সেই দিকেও নজর রাখতে চলেছে বিজেপি।

এছাড়া বৈঠকের অন্যতম কারণ হিসেবে সাংগঠনিক পদে রদবদলকেও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ ক্ষমতায় আসার পর এই একাধিক প্রশাসনিক পদে রদবদল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই এবার দলের সাংগঠনিক পদেও বেশকিছু রদবদল করতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে সংশ্লিষ্ট মহলের তরফে।