শপথ গ্রহণ শেষ করেই করোনা নিয়ে নবান্নে জরুরী বৈঠক মমতার!

শপথ গ্রহণ শেষ করেই করোনা নিয়ে নবান্নে জরুরী বৈঠক মমতার
শপথ গ্রহণ শেষ করেই করোনা নিয়ে নবান্নে জরুরী বৈঠক মমতার

একুশের নির্বাচনে জিতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, এখন লক্ষ্য একটাই,সেটা হল কিভাবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এমনকি এই পরিস্থিতিতে তার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান অনাড়ম্বর পূর্ণ করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সেই মত বুধবার শপথ গ্রহণ হলেই নবান্নে যাবেন হবু মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে গার্ড অব অনার নিয়েই শুরু করবেন প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক।

সূত্রের খবর, এদিন শপথ গ্রহণের পর যাবতীয় অনুষ্ঠান শেষ হলেই নবান্নে শীর্ষ প্রশাসনিক কর্তাদের নিয়ে কোভিড বৈঠক করার কথা তাঁর। ইতিমধ্যেই করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্যসচিব, রাজ্য পুলিশের ডিজি, কলকাতার নগরপালের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মমতা। তবে তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর আজ নবান্নের বৈঠক থেকে রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তিনি কি বার্তা দেন সেটাই দেখার।

প্রসঙ্গত, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এই পরিস্থিতিতে উৎসব না করে বরং মানুষের পাশে দাঁড়াতে। তিনি বলেছেন, পরিস্থিতি স্বাভবিক হলে এই বিজয় উৎসব হবে ব্রিগেডের মাঠে। উল্লেখ্য, আজ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতার শপথ গ্রহনের পর আগামীকাল বিধায়করা শপথ নেবেন। ৬ তারিখ থেকে বিধায়কদের শপথ ৷ নবনির্বাচিত বিধায়কদের শপথ নেওয়াবেন প্রোটেম স্পিকার সুব্রত মুখোপাধ্যায়। পরে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় হবেন স্পিকার।

দ্বিতীয়বারের জন্য যখন শপথ নিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তখন সেই অনুষ্ঠান করা হয়েছিল রেড রোডে। আড়ম্বরপূর্ন সেই অনুষ্ঠান ছিল দেখবার মত। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি আলাদা। তাই করোনা পরিস্থিতিতে অনাড়ম্বর ভাবেই হবে শপথ গ্রহণ। তবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, দিলীপ ঘোষ, অধীর চৌধুরী, আব্দুল মান্নান থেকে শুরু করে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কেও। এখনও পর্যন্ত যা খবর, আজকের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে সব মিলিয়ে ৫০ জন অতিথি আমন্ত্রিত রয়েছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.