শুধুমাত্র স্মৃতিশক্তির জোরেই ২১০০ আসামীকে ফাটকে পুরেছেন ‘বিষ্ময় মানব’ এই পুলিশ অফিসার

শুধুমাত্র স্মৃতিশক্তির জোরেই ২১০০ আসামীকে ফাটকে পুরেছেন 'বিষ্ময় মানব' এই পুলিশ অফিসার
শুধুমাত্র স্মৃতিশক্তির জোরেই ২১০০ আসামীকে ফাটকে পুরেছেন 'বিষ্ময় মানব' এই পুলিশ অফিসার

ডিসেম্বর মাসে ব্রিটেনের অ্যামপ্লিফন অ্যাওয়ার্ডস ফর ব্রেভ ব্রিটনস পুরস্কার পেয়েছেন এই পুলিশ অফিসার। বিগত তিন বছরের মধ্যে তিনি নাকি প্রায় ২১০০ আসামীকে ভরেছেন লক-আপে। এই পর্যন্ত পড়ে যদিও আশ্চর্য কিছুই মনে হচ্ছে না। কিন্তু যদি বলি এই অপরাধীদের তিনি সনাক্ত করেছেন শুধুমাত্র নিজের স্মৃতি শক্তির ভরসায়? একটু অবাক হতে হয় বৈকি। ইংল্যান্ডের পুলিশ অফিসার অ্যান্ডি পোপ এমনই এক বিরল প্রতিভার অধিকারী।

একবার কাউকে দেখলে, তার মুখ চিরতরে স্থায়ী হয়ে যায় তার মস্তিষ্কে। কিছুতেই তাকে ভোলেন না তিনি। এমনকি সে যদি মাস্ক পরেও সামনে আসে, তাকে ঠিক চিনে ফেলেন অ্যান্ডি। ফলে কোনও আসামীই তার চোখকে ফাঁকি দিতে পারে না। তার সদা জাগ্রত দৃষ্টি শানিয়ে বেড়ায় চারপাশ।

সিসিটিভিতে কোনও অপরাধীর ছবি দেখলে বাস্তবে তার সঙ্গে মেলাতে তার মোটেও বেশি সময় লাগে না। কোনও বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি নয়, এক্ষেত্রে তার ভরসা কেবলই তার স্মৃতি শক্তি এবং তীক্ষ্ণ নজর। এভাবেই বিগত তিন বছরে দু’হাজারের বেশি অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছেন তিনি। এমনকি গত বছরেও লকডাউনের মধ্যেই প্রায় ৪০০ জন আসামী ধরা পড়েছে তার হাতে।

এই আশ্চর্য ক্ষমতা তিনি কী ভাবে পেলেন, তা নিজের কাছেই অজানা অ্যান্ডির। সম্প্রতি বিশ্বের বাছাই করা ২০ জন পুলিশ অফিসারকে নিয়ে গঠিত ‘আন্তর্জাতিক আইডেন্টিফিকেশন স্কোয়াড’-এরও অন্যতম সদস্য তিনি। ইংল্যান্ড পুলিশ বিভাগে ইতিমধ্যেই জোর আলোচনা, মৃত্যুর পর অ্যান্ডির মস্তিষ্ক নিয়ে গবেষণা হওয়া উচিৎ! কারণ, তিনি যে সাধারণ কোনও মানুষ নন। তিনি এক ‘বিষ্ময় মানব’!

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.