ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে সামনে এলো আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য! খোঁজ মিলল ৮ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের

ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে সামনে এলো আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য! খোঁজ মিলল ৮ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের
ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে সামনে এলো আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য! খোঁজ মিলল ৮ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ কসবা ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে প্রতারক দেবাঞ্জন দেব এর রহস্য খুলছে ধীরে ধীরে। কসবা এলাকায় ভুয়ো ভ্যাক্সিনেশন সেন্টার খোলেন তিনি। সেখান থেকেই মঙ্গলবার অর্থাৎ ২২ জুন টিকা নেন অভিনেত্রী তথা সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। টিকা নেওয়ার পর ফোনে ভ্যাকসিনের ম্যাসেজ ও সার্টিফিকেট না পাওয়ায় পুলিশ স্টেশনে গিয়ে অভিযোগ করেন তিনি। আর তাঁরই তত্পরতায় বুধবার জানা যায় ওই ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্প আসলে ভুয়ো।

অন্যদিকে ভ্যাকসিন পরীক্ষার জন্য পাঠালে জানা যায়, ওই ভুয়ো ক্যাম্পে অ্যামিকাসিন অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয় করোনা ভ্যাকসিন কোভিসিল্ডের বদলে। এমনকি ধৃত দেবাঞ্জন দেব নিজেকে IAS অফিসার হিসেবে পরিচয় দিতেন। সেই পরিচয়ও ভুয়ো বলেই জানা গেছে। আর এবার ধৃত দেবাঞ্জন দেব কে জেরা করায় সামনে এসেছে আরও চাঞ্চল্যকর নানা তথ্য।

প্রতারক দেবাঞ্জন দেব পুলিশ কে জানিয়েছেন তিনি ভ্যাকসিন চেয়ে ইমেল করেছিলেন শ্রীরাম ইনস্টিটিউটকে। তবে এর সত্যতা যাচাই করতে খতিয়ে দেখছে পুলিশ। অন্যদিকে তদন্তকারীরা ৮ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের খোঁজ পেয়েছেন। জানা গেছে ভুয়ো IAS দেবাঞ্জন দেব WBFINCORP নামের একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে বেতন দিতেন কর্মচারীদের। তবে ওয়েস্ট বেঙ্গল ফিন্যান্সিয়াল কর্পোরেশেনর চেয়ারম্যান অভিরূপ সরকার জানিয়েছেন, ওয়েস্ট বেঙ্গল ফিন্যান্সিয়াল কর্পোরেশেনর সঙ্গে ওই অ্যাকাউন্টের কোনও যোগাযোগ নেই। তবে এই অ্যাকাউন্ট কীভাবে খোলা হয়েছে তাঁর তদন্ত চালাচ্ছেন তদন্তকারীরা।

অন্যদিকে ভুয়ো IAS দেবাঞ্জন দেব পুলিশের জেরায় সিটি কলেজ ও কসবা এই দুই ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পের কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়া তাঁর বর্তমান ও প্রাক্তন বেশকিছুজন কর্মীদেরও জেরা করে পুলিশ। অন্যদিকে ভুয়ো IAS দেবাঞ্জন দেবের অফিস তল্লাশি চালিয়ে তদন্তকারীরা I&CA, PWD, রাজ্য নির্বাচন কমিশন সহ কলকাতা কর্পোরেশেন এর জাল স্ট্যাম্প উদ্ধার করেছে।