ব্যায়াম ছাড়াই বাড়ান মাসল

প্রোটিনের অভাব: পেশি গঠনের সময়ে প্রোটিন গ্রহন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । ব্যায়ামের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে শরীরকে পর্যাপ্ত প্রোটিন সরবরাহ করতে না পারলে পেশির বৃদ্ধি থেমে যাবে। কাঙ্ক্ষিত ওজনে প্রতি দুই কেজির জন্য ০.৪ গ্রাম করে প্রোটিন নিতে হবে। আর ক্ষয়পূরণের পাশাপাশি পেশি গড়তে চাইলে এর মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হবে ০.৩ গ্রাম পরিমাণ। তাহলে ফল পাবেন।

পর্যাপ্ত জল পান: ওজন কমানো আর পেশি গঠন দুটোর জন্যই জলের প্রয়োজন। জলশূন্যতা সকল প্রচেষ্টা পণ্ডশ্রমে পরিণত করতে যথেষ্ট। কারণ পর্যাপ্ত জল না পেলে পেশির কোষ প্রোটিনকে কাজে লাগাতে পারেনা। পাশাপাশি জলশূন্যতার কারণে খাওয়ার মাত্রা বেড়ে যায়।

পর্যাপ্ত ঘুম: কঠোর পরিশ্রম করার পরেও যদি শরীরে কোনো পরিবর্তন না আসে তবে হয়ত আপনার ঘুমের চাহিদা পূরণ হচ্ছে না। কারণ ঘুমানোর সময়ই পেশি তার ক্ষয়পুরণ করার সুযোগ পায়। তাই ঘুম পর্যাপ্ত না হলে এই প্রক্রিয়া অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। এজন্য প্রতিদিন সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুম নিশ্চিত করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  এই কয়েকটি খাবার খেলে ত্বকে পড়বেন বয়সের ছাপ

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.