করোনা সংক্রমণে লাগাম টানতে ১১টি কড়া দাওয়াই রাজ্য প্রশাসনের

করোনা সংক্রমণে লাগাম টানতে ১১টি কড়া দাওয়াই রাজ্য প্রশাসনের
করোনা সংক্রমণে লাগাম টানতে ১১টি কড়া দাওয়াই রাজ্য প্রশাসনের

গতবারের থেকে এবার আরও ভয়ঙ্কর রূপ নিয়ে ফিরে এসেছে করোনা। তাই এবারের পরিস্থিতি কি সামাল দিতে আরো কোমর বাঁধতে হবে রাজ্য প্রশাসন কে। সেইমতো তৈরি হওয়ার জন্য ১১ দফা নির্দেশিকা জারি করল নবান্ন। এই ১১দফা নির্দেশিকা মানার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে রাজ্য প্রশাসনের তরফে।

এক নজরে ১১ দফা পরামর্শ:
১,সরকারি-বেসরকারি কর্মক্ষেত্র, শিল্পাঞ্চল, শপিং মলে সপ্তাহে একদিন করে জীবাণুমুক্তকরণ করতে হবে।
২, বাস-ট্রেন এছাড়াও বিভিন্ন গণপরিবহনে পারস্পরিক দূরত্ব বৃদ্ধি মেনে, মাস্ক পড়ে চলতে হবে। সাধারণ মানুষ এই বিষয়গুলি মানছেন কিনা তা নিশ্চিত করবে সে স্থানীয় প্রশাসন।
৩, সমস্ত বাজারকে সপ্তাহে একবার জীবাণুমুক্তকরণ করতে হবে।
৪, বাজার গণপরিবহন এবং ব্যক্তিগত গাড়িতে সব সময় মাস্ক পড়ে থাকতে হবে।
৫, রাজ্য সরকারি অফিসগুলোতে সর্বাধিক ৫০% কর্মী নিয়ে কাজ করতে হবে। এরপর ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে কর্মীদের অফিসে আনার ব্যবস্থা করতে হবে।
৬,শপিং মল মাল্টিপ্লেক্স হোটেল-রেস্তোরাঁ তে প্রবেশ এবং বাইরে যাওয়ার পথে স্যানিটাইজার হ্যান্ডওয়াশ এবং থার্মাল স্ক্যানিং এর ব্যবস্থা রাখা বাধ্যতামূলক।
৭, স্টেডিয়াম, সুইমিং পুল ব্যবহারের ক্ষেত্রে যে গাইডলাইন ছিল সেগুলিকে মানতে হবে।
৮, দোকান বাজার বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং কাজের জায়গায় যেন অনেক মানুষ একসঙ্গে কাজ না করে এবং একসঙ্গে যেন বেশি মানুষের ভিড় না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
৯, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিকে ফের বাড়ি থেকে কাজ করার ব্যবস্থা করতে হবে।
১০,কর্মস্থলে দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিককে নিশ্চিত করতে হবে যাতে সকল কর্মীরা মাস্ক পড়েন, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করেন এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখেন।
১১, সর্বশেষে এই সমস্ত গাইডলাইন না মানলে আইনত কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

রাজ্য যেভাবে করো না বাড়ছে তাতে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মহলের কপালে। শনিবারও ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭,৭১৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। রাজ্যের মধ্যে সবথেকে ভয়াবহ অবস্থা কলকাতার। এখানে একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১৯৯৮ জন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.