করোনা আক্রান্ত নিরাপত্তারক্ষী! পিছিয়ে গেল নন্দীগ্রাম-কাণ্ডে রিপোর্ট পেশ

করোনা আক্রান্ত নিরাপত্তারক্ষী! পিছিয়ে গেল নন্দীগ্রাম-কাণ্ডে রিপোর্ট পেশ
করোনা আক্রান্ত নিরাপত্তারক্ষী! পিছিয়ে গেল নন্দীগ্রাম-কাণ্ডে রিপোর্ট পেশ

নন্দীগ্রামে কিভাবে মুখ্যমন্ত্রীর পায়ে চোট লেগেছিলো তা মুখ্য সচিব এবং ডিজির কাছে জানতে রিপোর্ট তলব করেছিল নির্বাচন কমিশন। কিন্তু এবার সেই রিপোর্ট দিতে আরো বেশ কিছুটা সময় লাগবে বলে জানিয়েছে রাজ্য। কারণ ওই সময় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা দুজন নিরাপত্তারক্ষী আপাতত করোনা আক্রান্ত।

নন্দীগ্রামে মনোনয়নপত্র জমা দিতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর আহত হওয়ার পর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। এর জেরে মুখ্যমন্ত্রী বিশেষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা বিবেক সহায়কে সরিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। পাশাপাশি গোটা ঘটনায় কোথায় গাফিলতি ছিল তা জানতেও একটি বিশেষ কমিটি গঠন করেছে নির্বাচন কমিশন। এই কমিটিতে রয়েছেন মুখ্যসচিব এবং ডিজি। ১৭ মার্চের মধ্যে নন্দীগ্রাম-কাণ্ডে বিস্তারিত রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছিল কমিশনের তরফ এ। কিন্তু ওই সময় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা দুই নিরাপত্তারক্ষী আপাতত করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সেই রিপোর্ট দিতে খানিকটা দেরি হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্য সচিব এবং ডিজি।

ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশন রিপোর্ট দিয়ে জানিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিরাপত্তায় যে গাফিলতি ছিল সে বিষয়ে কোন দ্বিমত নেই। কিন্তু কীভাবে আঘাত লাগলো বা সেই সময় কারা উপস্থিত ছিল ঘটনাস্থলে সেই সমস্ত কিছু বিস্তারিত জানতে চেয়েই এই রিপোর্ট তলব করেছিল কমিশন। কিন্তু দুই নিরাপত্তারক্ষী করণা আক্রান্ত হওয়ায় আপাতত তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা যাচ্ছে না। সেই কারণে রিপোর্ট জমা দিতে আরো বেশ খানিকটা সময় লাগবে।

অন্যদিকে সেই সময় মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে যারা ছিলেন বা মুখ্যমন্ত্রীর ড্রাইভার যিনি ছিলেন তারা সকলেই এখন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে জেলা সফরে রয়েছেন। এই কারণে আপাতত তাদের সরাসরি জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারছেনা কমিশন। এছাড়াও ভোটের পর যদি রিপোর্ট জমা পড়ে সে ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন কোন পদক্ষেপ নিতে পারবে না। কিন্তু ভোট চলাকালীন যদি রিপোর্ট জমা দেওয়া হয় কমিশন তাহলে কমিশনের তরফ এ কি পদক্ষেপ নেওয়া হয় সেটাই এখন দেখার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.