বাংলায় জিতছে বিজেপিই! ভোট-যুদ্ধ শুরুর আগেই, পুরুলিয়ার সভার ভিডিও টুইট করে ঘোষণা মোদীর

বাংলায় জিতছে বিজেপিই! ভোট-যুদ্ধ শুরুর আগেই, পুরুলিয়ার সভার ভিডিও টুইট করে ঘোষণা মোদীর
বাংলায় জিতছে বিজেপিই! ভোট-যুদ্ধ শুরুর আগেই, পুরুলিয়ার সভার ভিডিও টুইট করে ঘোষণা মোদীর / ছবি সৌজন্যে- Screengrab from Video Tweeted By @narendramodi

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ অপেক্ষার দিন কমে আসছে ক্রমশ। আর মাত্র কয়েকদিন বাকি বাংলায় নির্বাচন শুরু হতে। প্রতিটি রাজনৈতিক দল তাদের প্রচারে ব্যস্ত। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা প্রায়ই বঙ্গে আসছেন প্রচারে।

একদিন আগেই নির্বাচনী প্রচারে বঙ্গ সফরে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পুরুলিয়ায় জনসভা করে গেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রাজ্যে শাসকদল তৃণমূলের ‘খেলা’ শেষ করে উন্নয়নের ‘খেলা’ শুরু হওয়ার বার্তা দিয়ে গিয়েছেন তিনি। বলেছেন, একুশের নির্বাচনের মাধ্যমে তৃণমূলের ‘অপশাসন’-এর অবসান ঘটিয়ে আসল পরিবর্তন আনবে বিজেপি।

পুরুলিয়ার সেই সভায় মানুষের জোয়ার এবং মানুষের সমর্থনে আপ্লুত প্রধানমন্ত্রী। আজ তিনি সেই জনজোয়ারের দুটি ভিডিও টুইট করেছেন। সঙ্গে দাবি করেছেন যে, বাংলায় বিজেপিই জিতবে। আর বিজেপির সেই জয়ের মধ্যে দিয়েই বাংলায় আসল উন্নয়ন হবে। এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হবে বাংলায় বিজেপির হাত ধরেই।

পুরুলিয়ায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দুটি জনসভা করেন। সেই জনসভা সংক্রান্ত দুটি টুইট করেন তিনি। প্রথমটি ১৩ সেকেন্ডের একটি ভিডিও। যাতে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে রাস্তার দু-ধারে কাতারে কাতারে মানুষ দাঁড়িয়ে আছেন। সেই ভিডিওতে গাড়ির ভিতর থেকেই জনগণের উদ্দেশে হাত নাড়তে দেখতে পাওয়া যায় প্রধানমন্ত্রীকে। অপর টুইটটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে, বাংলায় বিজেপির ক্ষমতা দখলের বিষয়ে তিনি কতোটা নিশ্চিত, তা দ্বিতীয় টুইটের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিয়েছেন। লিখেছেন, ‘বাংলায় বিজেপির জয় উন্নয়নের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে। একই সঙ্গে তৃণমূলের গুন্ডারাজের সমাপ্তি হবে।’

উল্লেখ্য, এই দ্বিতীয় টুইটে প্রধানমন্ত্রী তাঁর পুরুলিয়ার জনসভার বক্তৃতার বাছাই করা কিছু অংশ তুলে ধরেছেন। সেখানে যেমন রয়েছে রামনাম থেকে জলের সমস্যা, তেমনই রয়েছে খেলা হবে থেকে মাওবাদী সমস্যা। মোদীর নিজের দেওয়া প্রতিটি প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি তৃণমূলের অপশাসনের কথাও তুলে ধরেন। তিনি মমতাকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘টিএমসি বলছে, খেলা হবে। দিদি বলেন, খেলা হবে। আর বিজেপি বলে, চাকরি হবে। বিকাশ হবে।’

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির জয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর এই আত্মবিশ্বাস রাজনৈতিক দিক থেকে বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সভা করছেন জঙ্গলমহলে। সেই নির্বাচনী প্রচারে ইতিবাচক সাড়া মিলেছে। সেখানে মোদীর এই টুইট বিজেপি নেতা-কর্মীদের লড়াইয়ে উৎসাহিত এবং উদ্বুদ্ধ করবে বলেই মনে করছেন রাজনীতিবিদরা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.