বাড়ছে করোনা সংক্রমণ! এহেন অবস্থায় বাতিল হচ্ছে না, রাজ্যে মোদীর কোনও জনসভা

বাড়ছে করোনা সংক্রমণ! এহেন অবস্থায় বাতিল হচ্ছে না, রাজ্যে মোদীর কোনও জনসভা
বাড়ছে করোনা সংক্রমণ! এহেন অবস্থায় বাতিল হচ্ছে না, রাজ্যে মোদীর কোনও জনসভা

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে ভোটের মরশুমের মধ্যেই করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে। প্রতিদিন বাড়ছে সংক্রমণের সংখ্যা। দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে প্রতিদিন নয়া রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

এদিকে নির্বাচন কমিশন কোভিড পরিস্থিতিতে নানা বিধিনিষেধ জারি করছে ইতিমধ্যেই। তবে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে  রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে, বিজেপির হয়ে ভোট প্রচারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কোনও সভা বাতিল হচ্ছে না। এমনটাই বিজেপি সূত্রের খবর। এও জানা গিয়েছে যে, কোভিডবিধি মেনেই আগামী জনসভা অনুষ্ঠিত হবে। ব্যবহার করা হবে এলইডি স্ক্রিন। উল্লেখ্য, এখনও রাজ্যের ভোট উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর আরও চারটি সভা করার কথা রয়েছে। দু’দিনে ওই চার সভা হওয়ার কথা ছিল। তবে, এখন সূত্রের খবর থেকে জানা যাচ্ছে যে, ২৪ এপ্রিলই ওই চার সভা হয়ে যাবে।

জানা গেছে, আগামী ২২ এপ্রিল মালদা ও মুর্শিদাবাদ এবং ২৪ এপ্রিল বোলপুর ও দক্ষিণ কলকাতায় প্রধানমন্ত্রীর জনসভা করার কথা ছিল। তবে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ঠিক হয়েছে, দু’দিনে নয়, একদিনে ২৪ তারিখেই চারটি সভা হবে। সূত্রের খবর, সেদিনই বাংলার ভোটপ্রচারে ইতি টানবেন মোদী। বর্তমান করোনা পরস্থিতির কথা বিবেচনা করেই, কোভিডবিধি মেনে কীভাবে এই সভাগুলি করা সম্ভব, তা নিয়ে আলোচনা চলছে বলে দলীয় সূত্রে খবর। আজ রাতের মধ্যেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানা গিয়েছে। করোনার সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর সভার রূপ পরিবর্তন করার জন্য ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

করোনার সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর সভার রূপ পরিবর্তন করার জন্য ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ট্যুইট করে সোমবার এই বার্তা জানিয়েছেন BJP কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

তাঁর ট্যুইটে বিজয়বর্গীয় বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জনসভাগুলোতে সামাজিক দূরত্বের জন্য বিশেষ মনোযোগ দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। আগামী দিনে সেভাবেই দল সভা সমাবেশের আয়োজন করবে, কার্যত ট্যুইটবার্তায় এই ইঙ্গিতই দিলেন বিজয়বর্গীয়।

অন্যদিকে, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে, বামেরা তাঁদের সমস্ত বড় নির্বাচনী সভা বাতিল করেছে দিয়েছে ইতিমধ্যেই। কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধীও এ রাজ্যে তাঁর সমস্ত সভা বাতিল করে দিয়েছেন, করোনার কারণেই। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও জানিয়েছেন, তিনি কলকাতায় আর বড় কোনও সভা করবেন না। সব জায়গাতেই তাঁর কর্মসূচী হবে সংক্ষিপ্ত। শুধুমাত্র ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারের শেষ দিন ২৬ এপ্রিল তিনি একটি ‘সিম্বলিক মিটিং’ করবেন। করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে, ইতিমধ্যেই তিনি বিভিন্ন জেলায় তাঁর যাবতীয় কর্মসূচির সময়ও কমিয়ে ফেলছেন। শহরের বাইরে সমস্ত জনসভা ও কর্মসূচি আধ ঘণ্টার মধ্যেই শেষ করবেন তিনি, এমনটাই তৃণমূল সূত্রের খবর। গতকাল, রবিবার রাতেই এই বার্তা দিয়েছিলেন ডেরেক ও’ব্রায়েন।

উল্লেখ্য, দেশের করোনা পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পশ্চিমবঙ্গে ভোটের প্রচারকে নিশানা করেছে বিরোধীরা। এদিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলার পরিবর্তে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অগ্রাধিকার পাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের ভোট। তিনি এদিনও এক বা দু’দিনে ভোট সম্পন্ন করার জন্য কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বাকি দফার ভোট এক দফায় করা হলে, এই করোনা পরিস্থিতিতে তা হবে উপযুক্ত। তাঁর অভিযোগ, বিজেপির কথাতেই দফা কমানোর পথে হাঁটছে না নির্বাচন কমিশন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.