শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের শান্তিশৃঙ্খলা তদারকির জন্য একজন এসপি পদমর্যাদার অফিসার নিয়োগ নির্বাচন কমিশনের!

শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের শান্তিশৃঙ্খলা তদারকির জন্য একজন এসপি পদমর্যাদার অফিসার নিয়োগ নির্বাচন কমিশনের!
শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের শান্তিশৃঙ্খলা তদারকির জন্য একজন এসপি পদমর্যাদার অফিসার নিয়োগ নির্বাচন কমিশনের! / ছবি সৌজন্যে- Facebook Post By @ECI

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাত পোহালেই রাজ্যে দ্বিতীয় দফার বিধানসভা নির্বাচন রাজ্যের ৩০ টি আসনে। দ্বিতীয় দফায় ভোট রয়েছে, বাঁকুড়া, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলায়। প্রথম দফার ভোটের মতোই নজিরবিহীন নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে নির্বাচন কমিশন দ্বিতীয় দফার ভোটেও।

উল্লেখ্য, একুশের নির্বাচনে সবথেকে হাইভোল্টেজ কেন্দ্র পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম। এখানে তৃণমূলের হয়ে লড়ছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর বিপরীতে রয়েছেন বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। তিনি আগে তৃণমূলের প্রাক্তন মন্ত্রী ছিলেন।  স্বভাবতই এই কেন্দ্রে কমিশনের কড়া নজর রয়েছে।

তাই এবার শুধুমাত্র নন্দীগ্রাম কেন্দ্রের জন্য একজন এসপি পদমর্যাদার অফিসার নিয়োগ করল নির্বাচন কমিশন। নগেন্দ্র ত্রিপাঠীকে নিয়োগ করা হয়েছে কমিশনের পক্ষ থেকে, শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের শান্তিশৃঙ্খলা দেখভাল করার জন্য। অন্যদিকে, পূর্ব মেদিনীপুরের বাকি অংশের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকছেন প্রবীণ ত্রিপাঠী।

উল্লেখ্য, এর আগে ডায়মন্ডহারবার যাওয়ার পথে আক্রান্ত হন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার কনভয়। সেই হামলার পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লিতে ডেপুটেশনে পাঠানো হয় এই প্রবীণ ত্রিপাঠীকেই। এবার তাঁকেই দেওয়া হল পূর্ব মেদিনীপুরের নিরাপত্তার দায়িত্ব।

এমনিতেই নন্দীগ্রামের উত্তেজনার কথা মাথায় রেখেই, কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে নন্দীগ্রামকে। কারণ মনে করা হচ্ছে যে, নন্দীগ্রামের এই ভোটের ফলাফলই ঠিক করে দিতে পারে আগামী দিনে বাংলার রাজনীতির গতিপ্রকৃতি। এই কেন্দ্রে কোনও অশান্তি ছাড়া সুস্থ এবং শান্তিপূর্ণ ভোট করতে বদ্ধপরিকর নির্বাচন কমিশন। তাই চেষ্টায় কোনও খামতি রাখছেন না কমিশনের আধিকারিকরা।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন আগেই নন্দীগ্রামের ১৭টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৩৫৫টি বুথকে স্পর্শকাতর হিসেবে ঘোষণা করেছিল। এর পাশাপাশি বেশ কিছু বুথকে শনাক্ত করা হয়েছে অতি স্পর্শকাতর হিসেবেও। এবার এই বিধানসভা কেন্দ্র জুড়ে জারি করা হল ১৪৪ ধারা।

আজ অর্থাৎ বুধবার সন্ধে ৬টা থেকে আগামী শুক্রবার রাত ১২টা পর্যন্ত জারি থাকবে ১৪৪ ধারা। অর্থাৎ আজ রাত থেকে ভোট প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত নন্দীগ্রামে কোনওরকম জমায়েত করা যাবে না। ৫ জনের বেশি একসঙ্গে থাকা যাবে না। দুটোর বেশি বাইক একসঙ্গে বেরোলে গ্রেফতার করা হবে।

অন্যদিকে, শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের জন্য ২২ কোম্পানি আধাসেনা মেতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি শুভেন্দুর জন্য বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। তাঁর নিরাপত্তায় নিয়োগ করা হয়েছে ৩০ জন মহিলা আধাসেনা।

এদিকে প্রচারে বেরিয়ে প্রত্যেকবারই বহিরাগতদের নন্দীগ্রামে ঢোকার দাবি করেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজও হুগলিতে প্রচারে যাওয়ার আগে একই অভিযোগ করেছেন তৃণমূল নেত্রী। আবার অন্যদিকে, মঙ্গলবার নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ময়নার বিজেপি প্রার্থী অশোক দিন্দা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে দ্বিতীয় দফার ভোট এবং নন্দীগ্রামকে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.