জীবনের প্রথম ভোট দিতে গিয়েই গুলিতে মৃত্যু যুবকের

জীবনের প্রথম ভোট দিতে গিয়েই গুলিতে মৃত্যু যুবকের
জীবনের প্রথম ভোট দিতে গিয়েই গুলিতে মৃত্যু যুবকের

জীবনের প্রথম ভোটই কেড়ে নিল জীবন। কোচবিহারের শীতলকুচিতে গুলিতে প্রাণ গেল যুবকের। পরিবারের অভিযোগ বিজেপির করার অপরাধেই গুলি করা হয়েছে। যদি তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ মৃত তাদের দলের সমর্থক ছিলেন।

নিজের ধারা বজায় রেখে চতুর্থ দফার ভোটেও রাজ্যে সকাল থেকেই অশান্তির ছবি চোখে পড়ছে। এদিন সকাল বেলা শীতলকুচির পাগলাপীরে ভোটের লাইনে ভোট দিতে দাঁড়িয়ে ছিলেন আনন্দ বর্মন। এমন সময় আচমকা গুলি চালায় মৃত্যু হয় তার। তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ সঙ্গে সঙ্গে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় শীতলকুচি। পরিস্থিতি সামাল দিতে এলাকায় নামানো হয় ব়্যাফ।

বিজেপির অভিযোগ, সকালে ভোট দিতে গিয়ে বাধার মুখে পড়তে হয়েছিল তাদের। এদিকে পাঠানটুলির ৮৫ নম্বর বুথে বিজেপির এজেন্ট আনন্দ বর্মনকে জোর করে বের করে দেয় তৃণমূল। এমনকি বুথের সামনে বোমাবাজি চলছে বলেও অভিযোগ করেন বিজেপির কর্মী-সমর্থকেরা। এর পরেই গুলি চালানো হলে আনন্দ বর্মনের গায়ে গুলি লাগে এবং সঙ্গে সঙ্গে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

অন্যদিকে বিজেপি আনন্দ বর্মনকে নিজেদের পোলিং এজেন্ট বলে দাবি করলেও মৃতের পরিবারের দাবি এই প্রথম ভোট দিতে গিয়েছিলেন আনন্দ। সেখানেই গুলিবিদ্ধ হন তিনি। পুরো ঘটনায় ইতিমধ্যেই একজনকে আটক করেছে পুলিশ। পাশাপাশি গোটা ঘটনায় রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.