এটা বিবাদের সময় নয়! রাজ্যের আংশিক লকডাউন কে সমর্থন বিরোধীদের

এটা বিবাদের সময় নয়! রাজ্যের আংশিক লকডাউন কে সমর্থন বিরোধীদের
এটা বিবাদের সময় নয়! রাজ্যের আংশিক লকডাউন কে সমর্থন বিরোধীদের / প্রতীকী ছবি

রাজ্যে করোনা সংক্রমণে রাশ টানতে আংশিক লকডাউন ঘোষণা করেছে নবান্ন। এই পরিস্থিতিতে বিবাদে না গিয়ে রাজ্যের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাল বিরোধীরা। রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র শমিক ভট্টাচার্য, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী সকলেই এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছেন।

ইতিমধ্যেই রাজ্যে শেষ হয়েছে আট দফার নির্বাচন। রবিবার রয়েছে ফলাফল ঘোষণা। তার আগেই শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে আংশিক লকডাউন ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। নবান্নের তরফের বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানানো হয়েছে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সমস্ত বার, রেস্টুরেন্ট, শপিংমল, সিনেমাহল, সুইমিং পুল, বিউটি পার্লার বন্ধ থাকবে। সামাজিক জমায়েত, ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। অন্যদিকে বাজার হাট সকাল ৭ টা থেকে বেলা দশটা পর্যন্ত এবং দুপুর ৩ টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস, মুদিখানার দোকান এবং ঔষধের দোকান এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে।

এ নির্দেশিকা জারি হওয়ার পরেই তাকে স্বাগত জানিয়েছেন বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য। শমীক বাবু রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, “এটা নিয়ে কোনও রাজনীতি চাই না। এই সময় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার একসঙ্গে থাকা প্রয়োজন। সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে করোনা রুখতে, তার সঙ্গে আমরা থাকব।”

অন্যদিকে, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী জানান, “করোনাকে ঠেকানোর জন্য যা যা করার দরকার করুক। লকডাউনেও আমাদের আপত্তি নেই। কিন্তু, স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নত করতে হবে। মানুষের হয়রানি যাতে বন্ধ হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে। এছাড়াও করোনা সংক্রমণ থেকে বাংলাকে বাঁচাতে ভ্যাকসিন দেওয়া, ওষুধের ব্যবস্থা করতে হবে।”

সবশেষে তৃণমূলের বরিষ্ঠ সাংসদ সৌগত রায়, এই সময়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য রাজ্য সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.