বাঘিনীর গাছ-প্রেমের ছবি, সেরার খেতাব এনে দিল ফটোগ্রাফারের ঝুলিতে!

বাঘিনীর গাছ-প্রেমের ছবি, সেরার খেতাব এনে দিল ফটোগ্রাফারের ঝুলিতে!
বাঘিনীর গাছ-প্রেমের ছবি, সেরার খেতাব এনে দিল ফটোগ্রাফারের ঝুলিতে!

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ পরিবেশবিদরা সবসময় আমাদের চারপাশে, গাছ লাগানোর কথা বলেন। একটা গাছ, অনেকগুলি প্রাণ। অথচ তা না মেনে, আমরা একের পর এক গাছ কাটতেই থাকি। ১০ টা গাছ কাটলে, অন্ততপক্ষে একটা গাছ লাগাবার প্রয়োজনও অনেকেই মনে করেন না। তাই পরিবেশবিদরা যাই বলুন না কেন, তা মেনে যে ক’জন চলেন, সেবিষয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

যতই সভ্যতার বিকাশ ঘটছে, ততোই মানুষ বনভূমি ধ্বংসের খেলায় মেতে উঠেছে। যার জেরে বর্তমানে বিপন্ন পরিবেশ। কিন্তু পশুরা মানুষের মতো উন্নত জীব না হলেও, এক্ষেত্রে তারা মানুষের থেকে অনেকগুণ এগিয়ে। তারা জানে, অরণ্য তাদের কাছে সব। সম্প্রতি গাছের প্রতি এক বাঘিনীর ভালোবাসার ছবি খবরের শিরোনামে এসেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, এক বাঘিনী পরম মমতায়, ভালোবাসায় একটি গাছকে জড়িয়ে ধরে রয়েছে।

জানা যাচ্ছে যে, এই ছবিটি তোলা হয়েছে রাশিয়ার পূর্বের জঙ্গলে। যিনি এই ছবিটি তুলেছেন, সেই ফটোগ্রাফারের নাম সের্জেই গরসোকভ। ছবিটি এতোটাই সুন্দর যে, এই ছবিটির জন্য সের্জেই ‘ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অব দ্য ইয়ার ২০২০’ পুরস্কার অর্জন করেছেন। এই ছবিটি তোলার পেছেনে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। দীর্ঘ দশমাসের প্রতীক্ষার ফল এই অসাধারণ ছবিটি। ছবিটি তোলা হয়েছে ট্র্যাপ ক্যামেরায়। এই ধরনের ক্যামেরা দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গলের ভিতর রেখে দেওয়া হয়। যখনই কোনও পশু সেই ক্যামেরার সামনে আসবে, তখনই ছবি তুলবে ক্যামেরা। সের্জেইও সেভাবেই ওই বাঘিনীর ছবি তুলেছেন। ছবিটি এতোটাই সুন্দর যে, দেখে মনে হচ্ছে, ঠিক যেন কোনও শিল্পীর আঁকা তৈলচিত্র। বিচারকরাও এই ছবিটি দেখে তাজ্জব হয়ে গেছেন। তাঁরা ছবিটির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

লিনা হাইকিনেন-এর তোলা ছবি
লিনা হাইকিনেন-এর তোলা ছবি

এই ছবিটি ছাড়াও আরও একটি অসাধারণ ছবি দেখা গিয়েছে। সেটি অবশ্য একটি বন্য শিয়ালের। একটি হাঁস মেরে শিয়ালটি যখন তা খাচ্ছিল, সেই সময় তোলা হয় ছবিটি। এই ছবির জন্য ১৫ থেকে ১৭ বছরের গ্রুপে, প্রথম স্থান অর্জন করে নিয়েছেন ফিনল্যান্ডের বাসিন্দা লীনা হাইকিনেন। এই ছবিটি লিনাকে সেরা জুনিয়র ফটোগ্রাফারের পুরস্কারও এনে দিয়েছে। পাশাপাশি এই ছবিটিও উচ্চ প্রশংসিত হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.