উপকৃত হবেন প্রায় ২৫ লক্ষ কৃষক! নয়া প্রকল্পের উদ্বোধন করতে চলেছেন মোদী

উপকৃত হবেন প্রায় ২৫ লক্ষ কৃষক! নয়া প্রকল্পের উদ্বোধন করতে চলেছেন মোদী
উপকৃত হবেন প্রায় ২৫ লক্ষ কৃষক! নয়া প্রকল্পের উদ্বোধন করতে চলেছেন মোদী

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ সামনে বছরের শুরুতেই রয়েছে উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন। ইতিমধ্যেই সে রাজ্যে শুরু হয়ে গেছে নির্বাচনী প্রস্তুতি, প্রচার। এদিকে এই নির্বাচনী আবহে উত্তরপ্রদেশের জন্য ফের বড় উপহার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর তরফে।

জানা গিয়েছে, আগামী ১১ ডিসেম্বর বলরামপুর জেলায় সরযূ ক্যানাল প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ৯,৮০২ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পটি উত্তরপ্রদেশের বাহরাইচ, গোন্ডা, সন্ত কবীর নগর, বলরামপুর, গোরক্ষপুরের মতো এলাকার ওপর দিয়ে তৈরি হচ্ছে সেই প্রকল্প। এই প্রকল্প চালু হলে ২৫ লক্ষ কৃষক উপকৃত হবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, এই প্রকল্প ১৪.০২ লক্ষ হেক্টর জমিতে সেচের সুবিধা দেবে এবং নেপাল থেকে আসা জনের কারণে বেশ কয়েকটি এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির ঝুঁকি কমাবে। এই সরযূ ক্যানাল প্রকল্পটি ৯৯ টি প্রকল্পগুলির মধ্যে একটি যা দীর্ঘদিন ধরেই অমীমাংসিত ছিল এবং প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করার দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন।

১৯৭১ সালে এই প্রকল্পের সূচনা হয়েছিল। এরপর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দ্রুত পরিচালনায় রবিবারই এই প্রকল্পের কাজ শেষ হয়। এমনটাই জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের জলশক্তি মন্ত্রী মহেন্দ্র সিং। সরযূ ক্যানাল বিভাগের সঙ্গে যুক্ত এক কর্তার কথায়, প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে এবং রেলসেতু নির্মাণের কাজও শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় ঘাঘরা, সরযূ, রাপ্তি, বনগঙ্গা এবং রোহিন সহ পাঁচটি নদীকে সংযুক্ত করা হয়েছে এবং ৬,৬০০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের খালগুলি ৩১৮ কিলোমিটার দীর্ঘ মূল খালের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের জলশক্তি মন্ত্রী জানিয়েছেন যে, ‘এই প্রকল্পটি নেপাল থেকে পানি আসার কারণে বন্যার সমস্যা সমাধান করবে। এটি খালের পানি প্রবেশের কারণে মহসি, কায়সারগঞ্জ, নানপাড়া এবং মতিপুর তহসিল এলাকায় বন্যার ঝুঁকি কমিয়ে দেবে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশ সরকার ৭৮.৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি জেলায় সেচের জন্য ১৯৭৮ সালে একটি ছোট পরিসরে এই প্রকল্পটি শুরু করেছিল। চার বছর পর, ১৯৮২ সালে, এটি নয়টি জেলায় সম্প্রসারিত হয়। এর নাম পরিবর্তন করে সরযূ খাল জাতীয় প্রকল্প করা হয় এবং ২০২১ সালের মধ্যে খরচ বৃদ্ধি করা হয় ৯,৮০২ কোটি টাকা। এছাড়াও, সেচযোগ্য এলাকার ক্ষমতাও ৩.১২ লক্ষ হেক্টর থেকে ১৪.০৪ লক্ষ হেক্টরে উন্নীত করা হয়েছিল।

২০১৭ সালে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করার আগে পর্যন্ত প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করা যায়নি৷ এরপরে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বভার গ্রহণ করার পর যোগী আদিত্যনাথ প্রকল্পটি গ্রহণ করেছিলেন এবং প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করার জন্য পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ করেছিলেন৷

বাহরাইচের ঘাঘরা নদীর উপর গির্জাপুরি ব্যারেজের কাছে সরযূ খাল তৈরি করা হয়েছে, যা সরযূ নদীর উপর নির্মিত সরযূ ব্যারেজে জল প্রবাহকে সহজ করবে। একইভাবে শ্রাবস্তিতে রাপ্তি খাল তৈরি করা হয়েছে যা রাপ্তি মূল খালের জন্য ব্যবহার করা হবে। সরযূ প্রধান খাল থেকে দুটি খাল বের হলে বস্তি ও গোন্ডা জেলার কৃষকরা উপকৃত হবে। শ্রাবস্তীর রাপ্তি মূল খাল থেকে বলরামপুর, সিদ্ধার্থনগর, মহারাজগঞ্জ ও গোরখপুরে জল পরিবহনের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।