মার্কিন মুলুকে মোদী, ভোরবেলার বৃষ্টি উপেক্ষা করেই প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতে জানাতে হাজির প্রবাসী ভারতীয়রা

মার্কিন মুলুকে মোদী, ভোরবেলার বৃষ্টি উপেক্ষা করেই প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতে জানাতে হাজির প্রবাসী ভারতীয়রা
মার্কিন মুলুকে মোদী, ভোরবেলার বৃষ্টি উপেক্ষা করেই প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতে জানাতে হাজির প্রবাসী ভারতীয়রা

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কোয়াড গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির বৈঠক এবং গ্লোবাল সিইও বৈঠকের উদ্দেশ্যে মার্কিন মুলুকে অবশেষে পা রাখলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর, এই প্রথমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন জো বাইডেন। হোয়াইট হাউসে মুখোমুখি হবেন দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান। আজ নরেন্দ্র মোদী মার্কিন মুলুকে পা রাখতেই, সেখানকার ভারতীয়দের মধ্যে শোরগোল পড়ে হায়। ভোরবেলায় হওয়া ব্যাপক বৃষ্টিকে উপএক্ষা করেই, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে চলে আসেন বহু প্রবাসী ভারতীয়। উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় রাষ্ট্রদূত তরণজিৎ সিং সাধুও।

প্রধানমন্ত্রী টুইটারে লেখেন, ‘ওয়াশিংটনের প্রবাসী ভারতীয়দের কাছে এই উষ্ণ অভ্যর্থনার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা ভারতীয়রা আমাদের শক্তি। যেভাবে প্রবাসী ভারতীয়রা স্ব স্ব ক্ষেত্রে নজির করেছেন বিভিন্ন দেশে তা সত্যি কুর্নিশযোগ্য।’

উল্লেখ্য আগামিকাল কোয়াড গোষ্ঠীর বৈঠকের আগে আজ গ্লোবাল সিইও মিটিং করবেন প্রধানমন্ত্রী। অন্তত পাঁচ বড় শিল্পপতির সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা প্রধানমন্ত্রীর।ঠাসা কর্মসূচিতে একে একে সাক্ষাৎকার রয়েছে কোয়ালকম সিইও ক্রিস্টিয়ানো আর আমন, অ্যাডব চেয়ারম্যান শান্তুনু নারায়েন, ফার্স্ট সোলার সিইও মার্ক উইডমার, জেনারেল অ্যা টমিকস সিইও বিবেক লাল, ব্ল্যাকস্টোন সিইও স্টিফেন এ সোয়ার্জম্যা নের সঙ্গে। তাঁদের সঙ্গে ভারতের বর্তমান শিল্প ও বিনিয়োগের পরিবেশ নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানা গিয়েছে।

২৪ সেপ্টেম্বর প্রথমে বৈঠক রয়েছে ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যািরিসের সঙ্গে। ওইদিনই এরপর হোয়াইট হাউসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মুখোমুখী হবেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। বাইডেন ক্ষমতায় এসেই ভারতের সঙ্গে পুরনো সম্পর্কের কথা মনে করিয়ে দিয়ে মোদিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। সেই আমন্ত্রণ রক্ষা করতেই মোদির এই সফর।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শুধু ভারতের প্রধানমন্ত্রীই নন, কোয়াডের অন্তর্ভুক্ত আরও মোট তিন দেশের প্রধানমন্ত্রীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন জো বাইডেন। উপস্থিত থাকবেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা, অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। এই চার রাষ্ট্রনেতার একত্রে বৈঠকের পাশাপাশি আলাদা করে ভারত এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন জো বাইডেন। এমনটাই জানানো হয়েছে হোয়াইট হাউস কর্তৃপক্ষের তরফে।

উল্লেখ্য, এই চার নেতার বৈঠকে আলোচনার মূল বিষয়বস্তু হতে চলেছে আফগানিস্তান। সেখানে তালিবানের উত্থান এই মুহূর্তে ভারতের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ভারত এবং মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধানের বৈঠকের আলাদা তাৎপর্য রয়েছে বলেও মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। আফগানিস্তান ইস্যু ছাড়াও বৈঠকে আলোচনায় উঠে আসতে পারে করোনা ভ্যাকসিন, জলবায়ু পরিবর্তনের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জানিয়েছিলেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে একজোট হয়ে কাজ করার বার্তাও মূলত দেওয়া হবে এই বৈঠকে। করোনা অতিমারির মোকাবিলা, জলবায়ু পরিবর্তনের মতো সমস্যাগুলির ক্ষেত্রে একে অপরের সঙ্গে সহযোগিতা করে, আগামিদিনে এগিয়ে যাওয়ার বার্তাও উঠে আসবে এই চার দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের বৈঠকে। এছাড়াও বিশেষ নজরে থাকবে চিনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক। চিনের আগ্রাসী বাণিজ্য নীতির বিরুদ্ধে এই চার দেশ একজোট হয়ে কোনও পদক্ষেপ নেবে কিনা, সেদিকেই তাকিয়ে আন্তর্জাতিক মহল। চিনের ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ উদ্যোগকে চ্যালেঞ্জ করতে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে এই বৈঠকে। এমনটাও মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের মার্চে কোয়াড সম্মেলন, এপ্রিলে জলবায়ু পরিবর্তন এবং জুনে জি-৭ গোষ্ঠীর ভার্চুয়াল বৈঠকে কথোপকথন হয় মোদী ও বাইডেনের। তবে, এই প্রথম মুখোমুখি সাক্ষাৎ হবে দুই দেশের প্রধানের। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আগামীদিনে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্ক কতটা মজবুত হয়, তার জন্যও এই বৈঠক যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।