হলদিয়ার রাজনৈতিক সভা থেকে ফিরে, ফের টুইটের মাধ্যমে বাংলার সরকারকে খোঁচা মোদীর

হলদিয়ার রাজনৈতিক সভা থেকে ফিরে, ফের টুইটের মাধ্যমে বাংলার সরকারকে খোঁচা মোদীর
হলদিয়ার রাজনৈতিক সভা থেকে ফিরে, ফের টুইটের মাধ্যমে বাংলার সরকারকে খোঁচা মোদীর / ছবি সৌজন্যে - Screenshot from Facebook Video Post By @narendramodi

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বঙ্গে বিধানসভা ভোট সামনেই। ইতিমধ্যে ভোটের দামামা বেজে গেছে। বঙ্গের ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে জোরকদমে প্রস্তুতি শুরু করেছে প্রতিটি রাজনৈতিক দল। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির লক্ষ্য বঙ্গের শাসনক্ষমতা দখল করা। রাজ্যের বর্তমান শাসকদল তৃণমূলও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নয়। সব মিলিয়ে বাংলার বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজ্য-রাজনীতি এই মুহূর্তে বেশ উত্তপ্ত।

এই আবহে নির্বাচনকে সামনে রেখে, বাংলায় বিজেপি তাঁদের নানা রাজনৈতিক কর্মসূচী শুরু করে দিয়েছে। ইদানিং সময়ে কেন্দ্রের প্রথমসারির বিজেপির রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা প্রায়ই বঙ্গ সফরে আসছেন। সম্প্রতি বঙ্গ সফরে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পূর্ব মেদিনীপুরের হলদিয়ার রাজনৈতিক সভা থেকে তিনি আসন্ন নির্বাচনের জন্য প্রচার শুরু করেন। রবিবারই তিনি বঙ্গ সফরে এসেছিলেন। সেই রাজনৈতিক সভামঞ্চ থেকে একের পর এক ইস্যুতে বাংলার শাসকদলকে আক্রমণ করেন। কড়া ভাষায় শাসকদলের সমালোচনা করেছিলেন তিনি। তবে এখানেই শেষ নয়, হলদিয়া থেকে ঘুরে যাওয়ার পরেও, ফের একবার টুইট করে বাংলার সরকারের সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সোমবার রাতে তিনি ওই টুইট করেন। তাতে তিনি উল্লেখ করেন যে, বাংলার মানুষ উন্নয়নে বিশ্বাসী, দুর্নীতি চায় নয়। এর পাশাপাশি তিনি ওই টুইটে হলদিয়ায় (Haldia) রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে রাখা বক্তব্যের একটি অংশও তুলে ধরেন। ভিডিওর শুরুতেই, বাংলা ভাষায় বক্তৃতার বিশেষ অংশটি শোনা যায়। বাংলার সংস্কৃতির কথাও তাঁর টুইট করা ভিডিওতে শোনা গিয়েছে।

হলদিয়া ঠিক কোন কোন ক্ষেত্রে সমৃদ্ধ, সেকথাও তিনি ব্যক্ত করেন। এরপরই বাংলার শাসকদলের বিরুদ্ধে আক্রমণ শুরু করেন তাঁর বক্তৃতায়। নরেন্দ্র মোদী দাবি করেন যে, বাম-কংগ্রেসের মতোই তৃণমূলের শাসনকালেও রাজ্যে কোনও উন্নয়ন হয়নি। নাম না করে, ওই ভিডিওতে তাঁকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করতেও শোনা গিয়েছে। বাংলার মানুষ নির্মমতার শিকার হয়েছেন বলেই দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এছাড়াও একাধিক ইস্যুতে বাংলার বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তিনি।