রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত, স্থানীয় ক্লাব দখল নিয়ে সংঘর্ষে জড়ালো তৃণমূল-বিজেপি

রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত, স্থানীয় ক্লাব দখল নিয়ে সংঘর্ষে জড়ালো তৃণমূল-বিজেপি
রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত, স্থানীয় ক্লাব দখল নিয়ে সংঘর্ষে জড়ালো তৃণমূল-বিজেপি

ভোটের সময় রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত। এবার খোদ কলকাতায় ক্লাব দখলকে কেন্দ্র করে তুমুল সংঘর্ষে জড়ালো তৃণমূল বিজেপি। শনিবার রাতে মানিকতলা কাঁকুড়গাছি এলাকার ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে এক ক্লাবকে দখল করা নিয়ে সংঘর্ষ বাঁধে তৃণমূল এবং বিজিপির মধ্যে।এই ঘটনার জেরে ইতিমধ্যেই ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সূত্রের খবর, ঘটনার সূত্রপাত যদিও সকালে। তখন জল তোলা নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। তবে সেই সমস্যা মিটে যায় তখনই। কিন্তু বেলা যতই এগোয় তুষের আগুনের মতো ঝামেলা বাড়তে থাকে।

এরমধ্যে ঘটনাস্থলে আসেন এলাকার বিধায়ক সাধন পান্ডের মেয়ে শ্রেয়া পান্ডে। তিনি ঘটনাস্থলে সেই বিতর্কিত মন্তব্য করে বসেন। যার জেরে ফের নতুন করে অশান্তি শুরু হয় বলে জানাচ্ছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এরপরে ঘটনাস্থলে এসেছেন বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবে। এই ঝামেলাই ধীরে ধীরে গড়ায় ক্লাব দখল পর্যন্ত।

স্থানীয় ক্লাব নতুন পল্লী স্পোর্টিং কার দখলে থাকবে এই নিয়ে বিজেপি ও তৃণমূলের মধ্যে বচসা শুরু হয়। সেই বচসা গড়ায় হাতাহাতি পর্যন্ত। এর পরেই দু’পক্ষের মধ্যে ইটবৃষ্টি ভাঙচুর শুরু হয়। দুই পক্ষের বেশকিছু কর্মী সমর্থক আহত হয়েছেন ঘটনার জেরে।

খবর পেয়েই মানিকতলা থানার পুলিশ আসেন ঘটনাস্থলে। তবে পুলিশ কর্মীদের উদ্দেশ্যে লক্ষ্য করে ইট বৃষ্টি চালানো হয়। ভাঙচুর করা হয় পুলিশের গাড়িতেও এই মাঝেই দুজন পুলিশ কর্মী আহত হয়েছেন। এই ঘটনায় আজ সকাল পর্যন্ত আপাতত আটজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে, এই ঘটনার নিন্দা করে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “অনেক জায়গায় গন্ডগোল হচ্ছে আমাদের কর্মীদের মারছে কেস দিচ্ছে। প্রার্থীদেরকে মারছে তা সত্ত্বেও ৮০% বেশী ভোট হচ্ছে। মানুষ ঠিক করে নিয়েছেন তৃণমূলকে বিদায় করবে। বিজেপিকে ক্ষমতায় আনবে তাই তারা লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিচ্ছে। কেন্দ্রীয় বাহিনী বুথ পাহারা দিচ্ছেন, নির্বাচন কমিশন খুব একটিভ আছে, তারা অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নিচ্ছে ।আর যে সমস্ত পুলিশ অফিসাররা এখনো চামচাগিরি করছে তাদেরকে সরানো হচ্ছে”।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.