বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই, ২০২২

‘গণতন্ত্র কোথায়? গণতন্ত্রকে বুলডোজ করছে বিজেপি’! উদ্ধবের হয়ে জোর সওয়াল মমতার

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২২, ০৮:০৭ পিএম | আপডেট: জুন ২৩, ২০২২, ০৮:২০ পিএম

‘গণতন্ত্র কোথায়? গণতন্ত্রকে বুলডোজ করছে বিজেপি’! উদ্ধবের হয়ে জোর সওয়াল মমতার
‘গণতন্ত্র কোথায়? গণতন্ত্রকে বুলডোজ করছে বিজেপি’! উদ্ধবের হয়ে জোর সওয়াল মমতার

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মহারাষ্ট্রে এই মুহূর্তে রাজনৈতিক ডামাডোল চরমে। চল্লিশের বিধায়ক বিদ্রোহ করেছেন। এর জেরেই মহাবিপদে পড়েছেন উদ্ধব ঠাকরে। এই পরিস্থিতিতে মহারাষ্ট্রের সরকারের এই মুহূর্তের সংকট নিয়ে সরব হলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন কার্যত উদ্ধব ঠাকরের হয়ে জোর সওয়াল করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এদিন মুখ্যমন্ত্রী মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে অভিযোগ করেন, ‘মহারাষ্ট্রে যা ঘটছে তা শকিং। অনৈতিকভাবে সরকার ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করছে বিজেপি। অসমে এত বড় বন্যা হয়েছে, সেই সময় অসমে এই ধরনের কেনাবেচা চলছে। আজ গণতন্ত্র কোথায়? গণতন্ত্রকে বুলডোজ করছে বিজেপি। উদ্ধবের জন্য বিচার চাই।’ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এও অভিযোগ করেছেন যে, টাকা ছড়িয়ে, ইডি- সিবিআইয়ের ভয় দেখিয়ে বিধায়কদের কেনা হচ্ছে। 

এদিন একইসঙ্গে শিবসেনা প্রধান ও মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের পাশে দাঁড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘উদ্ধবের জন্য ন্যায় চাই। মহারাষ্ট্রে জন্য ন্যায় চাই। সংবিধান মেনে ন্যায় দেওয়া হোক।’ তাঁর অভিযোগ, ‘গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চাইছে বিজেপি। তাদের কাছে নাম্বার নেই, তাই টাকা ছড়িয়ে ভয় দেখিয়ে বিধায়ক কেনাবেচা চলছে। গোটা দেশে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করতে চায়। আজ মহারাষ্ট্রের সরকার ফেলার চেষ্টা করছে কাল অন্য রাজ্যে একই কাজ করবে।’

প্রসঙ্গত মহারাষ্ট্রে এই মুহূর্তে মহাসংকটে শিবসেনার সরকার। ৪০ থেকে ৪২ জন বিধায়ককে নিয়ে এই অসমের গুয়াহাটির একটি হোটেলে আশ্রয় নিয়েছেন বিক্ষুব্ধ শিবসেনা নেতা একনাথ শিন্ডে। উদ্ধব ঠাকরের সিংহাসন যখন টলমল, সেই সময় তাঁর পাশে দাঁড়ালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। বুধবারই গুজরাটের হোটেল ছেড়ে আরেক বিজেপিশাসিত রাজ্য অসমে পৌঁছেছেন তিনি। সঙ্গে রয়েছে শিবসেনার ৪০ থেকে ৪২ জন বিদ্রোহী বিধায়ক। তাঁদের স্বাগত জানিয়েছেন বিজেপিরই এক বিধায়ক সুশান্ত বড়গোঁহাই। বুধবার ভোরে এই বিধায়কদের একটি বাসে করে বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর সেখান থেকেই তাঁদের বিজেপিশাসিত রাজ্য অসমে নিয়ে যাওয়া হয়। 

এদিকে, এদিন একনাথের বাহিনী যে হোটেলে রয়েছে সেখানে গিয়ে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কংগ্রেস। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের মতে, শুধুমাত্র বার্তা দিয়ে থেমে থাকবে না তৃণমূল কংগ্রেস। একনাথ ও তাঁর সমর্থনে এগিয়ে আসা শিবসেনার এমএল-দের বিরুদ্ধে সরাসরি বিক্ষোভের রাস্তায় হাঁটা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ ২৪-এর লোকসভা নির্বাচনের আগে বারবার বিরোধী ঐক্যের বার্তা দিয়ে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, কেন্দ্রের ক্ষমতা থেকে বিজেপিকে হটাতে। এই পরিস্থিতিতে শিবসেনার পাশে দাঁড়ানোর অর্থ বিজেপিকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ করার পাশাপাশি ফের একবার বিরোধী ঐক্যের বার্তাও দেওয়া। 

অন্যদিকে, বিজেপিশাসিত ত্রিপুরার উপনির্বাচন নিয়েও সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে ভোটের নামে সন্ত্রাস চলেছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘কেউ প্রতিবাদ করলেই বুলডোজ করা হচ্ছে। ত্রিপুরাতে মানুষকে ভোট দিতে দেওয়া হচ্ছে না। বাংলায় সিবিআই, ইডি, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন পাঠাচ্ছে।’

এরপরই কার্যত হুঁশিয়ারির সুরে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় বলেন, ‘একদিন তো আপনাদেরও যেতে হবে। তখন কী করবেন। এ ভাবে টাকা দিয়ে সরকার ভাঙবেন না। আপনার দলও কেউ ভাঙতে পারে।’