বদলে যাচ্ছে নাম! আগামী সপ্তাহেই নতুন পরিচয়ে সামনে আসতে পারে জুকারবার্গের ‘ফেসবুক’

বদলে যাচ্ছে নাম! আগামী সপ্তাহেই নতুন পরিচয়ে সামনে আসতে পারে জুকারবার্গের 'ফেসবুক' / প্রতীকী ছবি
বদলে যাচ্ছে নাম! আগামী সপ্তাহেই নতুন পরিচয়ে সামনে আসতে পারে জুকারবার্গের 'ফেসবুক' / প্রতীকী ছবি

খুব শীঘ্রই বদলে যেতে চলেছে ফেসবুকের নাম। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই নাকি প্রকাশ্যে আসতে পারে মার্ক জুকারবার্গের সংস্থার নতুন নাম। সম্প্রতি এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। এই বিষয়ে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স সংবাদমাধ্যম ‘দ্য ভার্জ’-এর এক প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে জানিয়েছে, আগামী ২৮ অক্টোবর ফেসবুক সংস্থার একটি বার্ষিক কানেক্ট কনফারেন্স হওয়ার কথা। সেই কনফারেন্সেই নাকি নাম পরিবর্তনের বিষয়টি চূড়ান্ত হতে পারে।

কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, আচমকা নাম পরিবর্তনের পথে কেন হাঁটতে চাইছে জুকারবার্গের সংস্থা? সূত্রের খবর, সোশ্যাল মিডিয়া হিসেবে ফেসবুক পরিচিতি পেলেও বর্তমানে এই সংস্থার অধীনে একাধিক সংস্থা রয়েছে। একাধিক কর্পোরেট সংস্থার কাজের সঙ্গেও বর্তমানে যুক্ত ফেসবুক। এর কার্যকারিতা শুধুমাত্র চ্যাট বা ফটো আপলোডিং-এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। বরং নানা ধরনের পরিষেবার দিকে এগিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর ফেসবুক। সেই কারণেই নাম পরিবর্তন করে নতুন পরিচয়ে আসার পরিকল্পনা করছে জনপ্রিয় এই সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থা।

তবে জানা যাচ্ছে, সংস্থার নাম বদলালেও সম্ভবত ফেসবুক অ্যাপের নামে বদল ঘটবে না। নতুন যে নামে সংস্থাটি সামনে আসবে, সেই সংস্থার অধীনেই একটি অ্যাপ হিসেবে থাকবে ফেসবুক। এছাড়াও এই সংস্থার অধীনে থাকছে ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপও। যদিও এখনও পর্যন্ত এই গুঞ্জনকে উড়িয়েই দিয়েছে মার্ক জুকারবার্গের সংস্থা। ফেসবুকের তরফে এই গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে কোনও মন্তব্যই করা হয়নি বা পরিস্কার বার্তাও দেওয়া হয়নি। তবে মনে করা হচ্ছে ২৮ অক্টোবরের বার্ষিক সভাতেই এই বিষয়ক বক্তব্য রাখবেন জুকারবার্গ।

প্রসঙ্গত, নিজেদের সংস্থার বিস্তার ঘটাতে এবার রে ব্যানের মতো সংস্থার সঙ্গে হাত মিলিয়ে এআর গ্লাস তৈরি করার লক্ষ্যে রয়েছে ফেসবুক। এই চশমা ভারচুয়াল রিয়্যালিটি অর্থাৎ কল্পবাস্তবের মতো এক নিজস্ব সাইবার স্পেস তৈরি করে। যা বাস্তবের অভিজ্ঞতাকে এক অন্য মাত্রা এনে দেয়। জুকারবার্গ মনে করছেন, এই মুহূর্তে অত্যন্ত ব্যয়সাপেক্ষ এই চশমা সাধারণের সাধ্যের বাইরে হলেও, ঠিকমতো পদক্ষেপ নিলে অচিরেই স্মার্টফোনের মতো সকলের হাতে হাতে ঘুরবে এই চশমা।