সাংবাদিক বৈঠকে অমিত শাহ ও কেন্দ্র সরকারকে একহাত নিলেন ডেরেক এবং পূর্ণেন্দু বসু

সাংবাদিক বৈঠকে অমিত শাহ ও কেন্দ্র সরকারকে একহাত নিলেন ডেরেক এবং পূর্ণেন্দু বসু
সাংবাদিক বৈঠকে অমিত শাহ ও কেন্দ্র সরকারকে একহাত নিলেন ডেরেক এবং পূর্ণেন্দু বসু

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বাংলায় চলছে একুশের বিধানসভা নির্বাচন। আর এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের হাজারো প্রতিশ্রুতি বন্যা যেমন বইছে, ঠিক তেমনই পরস্পরের প্রতি কাদা ছোঁড়াছুড়ি এবং অভিযোগের অন্ত নেই। কেউ কাউকে একচুলও জমি ছাড়তে রাজি নয়।

ঠিক তাই বাংলায় চতুর্থ দফার ভোটের আগে, আজ তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে, অমিত শাহ এবং কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে একহাত নিলেন তৃণমূলের পক্ষ থেকে ডেরেক ও ব্রায়েন এবং মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু। কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের প্রতিশ্রুতি যে আসলে সবটাই ভাওতা, সেটা তুলে ধরাই এই সাংবাদিক বৈঠকের আসল উদ্দেশে ছিল। পাশাপাশি এ সম্বন্ধে মানুষকে অবগত করাটাও একটা লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য ছিল। এখানেই শেষ নয়, এর পাশাপাশি রাজ্যের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের ১০ বছরে কী কী কাজ করেছে তাও ফের একবার তুলে ধরা।

আজ সাংবাদিক সম্মেলনে ডেরেক প্রথমেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে একহাত নেন। তিনি তাঁকে ‘জুমলাবাজ’ বলে কটাক্ষ করেন। তিনি বলেন যে, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যখনই কলকাতায় আসেন, তখনই বড় বড় কথা বলেন। মিথে কথা বলেন, ঢপ দেন। আমরা ওনাকে বলি গুলবাজ, ঢপবাজ। ওনি বুঝে গেছেন, বিজেপি কী ফল করবে। জুমলাবাবু আপনি তো বাংলা বোঝেন না। ইলেকশনের আগেই বলেছিলেন ১৫ লক্ষ টাকা দেবেন। কোথায় টাকা? নন্দীগ্রামে বিজেপি হারছে। বাংলাতেও বিজেপি হারছে।’

আজ এই সাংবাদিক বৈঠকে অমিত শাহের একটি পুরনো ভিডিও তুলে, বিজেপি যে মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দেয় এবং এখনও দিয়ে চলেছে, তার প্রমাণ দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। যেখানে সাংবাদিকের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় দেখা যায় অমিত শাহকে। যেখানে সাংবাদিককে প্রশ্ন করতে শোনা যায় যে, ১৫ লক্ষা টাকা মানুষের অ্যাকাউন্টে দেওয়ার যে কথা বলা হয়েছিল, তার কী হল? উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন যে, ‘দেখুন এসবই জুমলা। সেটা সবাই জানেন। সরকার চালাতে গেলে এমন অনেক কিছুই বলতে হয়।’ এই ভিডিও দেখিয়ে ডেরেক বলেন যে, যখনই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কলকাতায় আসবেন, তাঁকে এই উপহার দেওয়া হবে।

মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু বলেন যে, ইলেকশন কমিশন একটি পার্টির হয়ে কাজ করছে। একাধিক অভিযোগ কমিশনে জানানো হয়েছে। তাও উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়নি কমিশন। পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নোটিশ দেওয়া প্রসঙ্গে পূর্ণেন্দু বসু বলেন যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে যত নোর্টিশ পাঠানো হবে। তিনি তত উত্তর দেবেন। সে জন্য তিনি তৈরি আছেন।