ভোটের মুখে রাজ্যের বড় স্বস্তি! প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট দিল এই রায়

সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ তৃণমূল নেত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট! কিন্তু কেন?
সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ তৃণমূল নেত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট! কিন্তু কেন?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ শিয়রে একুশের বিধানসভা নির্বাচন। আর এই নির্বাচনের আগে রাজ্যে প্রাথিমিক শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত মামলায় বড় স্বস্তি পেল রাজ্য সরকার। শর্তসাপেক্ষে ১৫,২৮৪ পদে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের বাধা কাটল। একদল পরীক্ষার্থীর দায়ের করা মামলা খারিজ করেছে দেশের শীর্ষ আদালত। উল্লেখ্য, আগেই এই মামলায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে অনুমতি দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। এবার হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের সেই রায়ই পুনর্বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট।

উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ অনুসারে প্রাথমিক টেটে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছিল প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। গত ফেব্রুয়ারিতে মোট ১৬,৫০০ শূন্যপদের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ১৫,২৮৪ জনের ফল প্রকাশ করা হয়। এরপর শুরু হয় নিয়োগ প্রক্রিয়াও। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন নিয়োগপত্র হাতে পেয়ে কাজে যোগও দেন।

এরপরেই সমস্যার শুরু। নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অস্বচ্ছতা রয়েছে, এই অভিযোগে চাকরিপ্রার্থীদের একাংশ কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করে। তাঁরা অভিযোগ করেন, প্রাথমিকে যে নিয়োগের কথা বলা হচ্ছে, তার কোনও মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। SMS বা ফোন করে প্রার্থীকে প্রাথমিক শিক্ষক পদে নিয়োগ করা হচ্ছে।

এর জেরে গোটা প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ দেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজ। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের পর, যাঁদের নিয়োগ করা হয়েছিল, তাঁদের বেতন বন্ধ করার ব্যাপারেও প্রাথমিকভাবে নির্দেশিকা জারি হয়। সেই নির্দেশিকা ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তা তুলেও নেওয়া হয়।

এদিকে এর পাল্টা ডিভিসন বেঞ্চের দ্বারস্থ হয় রাজ্য সরকার। ডিভিসন বেঞ্চ সিঙ্গল বেঞ্চের রায় খারিজ করে। চলতি মাসের শুরুর দিকেই কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ এই মামলার রায়ে জানায় যে, রাজ্য সরকার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে পারে। পাশাপাশি ২ সপ্তাহের মধ্যে মেরিট লিস্ট পর্ষদ অফিসে প্রকাশ করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এরপর মামলা গড়ায় দেশের শীর্ষ আদালত অবধি। বৃহস্পতিবার সেই মামলা খারিজ করে দিল শীর্ষ আদালত। হাইকোর্টের রায়ই ফের বহাল রাখা হল।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.