রাজ্যের ক্লিনিক্যাল সংস্থাপন রেগুলেটরি কমিশন বেসরকারি হাসপাতালকে রোগীর পিপিই কিটের ১.৮ লক্ষ টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিল

রাজ্যের ক্লিনিক্যাল সংস্থাপন রেগুলেটরি কমিশন বেসরকারি হাসপাতালকে রোগীর পিপিই কিটের ১.৮ লক্ষ টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিল
রাজ্যের ক্লিনিক্যাল সংস্থাপন রেগুলেটরি কমিশন বেসরকারি হাসপাতালকে রোগীর পিপিই কিটের ১.৮ লক্ষ টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিল

বংনিউ২৪X৭ ডেস্কঃ রোগীর চিকিৎসার নামে বেসরকারি হাসপাতালের লুট করার বিতর্ক থামছে না। ফের রাজ্যে বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে লাগামছাড়া টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠল। রাজ্য ক্লিনিক্যাল সংস্থাপন রেগুলেটরি কমিশন কলকাতার মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালকে ১.৮ লক্ষ টাকা রোগীকে ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। হাসপাতালের তরফে বিলে লেখা হয়েছিল, রোগী করোনায় সংক্রমিত থাকায় তার জন্য পিপিই কিটের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

ওই পিপিই কিটের জন্য ১.৮ লক্ষ টাকা বিলে উল্লেখ করা হয়েছিল। রোগী প্রায় তিন সপ্তাহ – আইসিইউ তে ৭ দিন, সবমিলিয়ে ৪ সপ্তাহও হাসপাতালে চিকিৎসারত ছিলেন না। হাসপাতাল বিপুল পরিমান টাকার বিল দিলে, তারা পশ্চিমবঙ্গ ক্লিনিক্যাল সংস্থাপন রেগুলেটরি কমিশনে অভিযোগ জানান।

হাসপাতালের আইনি দফ্তরের তরফে দোষীকে খোঁজা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে তারা তদন্ত করছেন বলে জানানো হয়েছে। যদিও তারা অতিরিক্ত বিল দেওয়ার কথা পুরোপুরি অস্বীকার করেছে। পিপিই কিটগুলি সত্যিই অত দামি ছিল, এবং রোগীর ভর্তি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্য কর্মীরা পিপিই কিট পরে তার সেবা যত্নের স্বার্থে ব্যবহার করেছে।

হাসপাতালের তরফে আরও বলা হয়েছে, রোগীকে ভর্তি নেওয়ার সময় দামি পিপিই কিটের কথা বার বার জানানো হয়েছিল। সবরকম সুরক্ষার জন্য ব্যয়বহুল সরঞ্জাম ব্যবহার করার কথাও উল্লেখ করা হয়েছিল। টাকা ফেরত দিতে হলে বেসরকারি হাসপাতাল চালানো যথেষ্ট মুস্কিল হয়ে পড়বে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.