প্রসেনজিৎকে সামনাসামনি ছুঁয়ে দেখতে চান সোনামণি! বুম্বাদার প্রতিশ্রুতি মন কাড়ল নেটদুনিয়ার

প্রসেনজিৎকে সামনাসামনি ছুঁয়ে দেখতে চান সোনামণি! বুম্বাদার প্রতিশ্রুতি মন কাড়ল নেটদুনিয়ার
প্রসেনজিৎকে সামনাসামনি ছুঁয়ে দেখতে চান সোনামণি! বুম্বাদার প্রতিশ্রুতি মন কাড়ল নেটদুনিয়ার

তাঁর শয়নে-স্বপনে-জাগরণে শুধুই অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। বুম্বাদাকে একবার হলেও সামনাসামনি ছুঁয়ে দেখতে চান তিনি। দেখতে চান চোখ ভরে। যাঁর কথা হচ্ছে তিনি হলেন বীরভূমের গড়গড়ি গ্রামের বাসিন্দা সোনামণি রুজ। সম্পর্কে তিনি জনপ্রিয় গায়ক শিলাজিৎ মজুমদারের গ্রামতুতো বোন। দাদার কাছে বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন সোনামণির আবদার শুধু একটাই, কোনওভাবে যদি প্রসেনজিৎকে তাঁর সামনে এনে হাজির করা যায়! এদিকে গায়ক তাঁকে বহুবার বুঝিয়েছেন তা সম্ভব নয়! স্বয়ং টলিউড ‘ইন্ডাস্ট্রি’কে কি আর ডাকলেই পাওয়া যায়! কিন্তু কে শোনে কার কথা! সোনামণি যে নাছোরবান্দা।

অবশেষে বোনের মন রাখতে প্রসেনজিতের উদ্দেশ্যে ফেসবুক পেজে সোনামণিকে নিয়ে একটি ভিডিও শেয়ার করলেন শিলাজিৎ। সেই ভিডিওর মাধ্যমে বুম্বাদার কাছে বোনের বার্তা পৌঁছে দিতে দিতে চেয়েছিলেন গায়ক। এদিকে সোনামণির আবদারে মন গলেছে সুপারস্টারেরও। গ্রামের ওই মেয়ে যে তাঁর স্বপ্নে বিভোর তা জেনেই আপ্লুত বুম্বাদা। সোনামণির উদ্দেশ্যে তিনিও এক ভিডিও বার্তায় জানালেন, করোনার দাপট একটু কমলেই তিনি শিলাজিতের সঙ্গে যাবেন সেই গ্রামে। সেখানে গিয়ে সোনামণির সঙ্গে দেখা করে কিছুটা সময় কাটাবেন। পাশাপাশি বুম্বাদা এও বলেন, বাংলার মানুষ তাঁকে এভাবে ভালবাসেন বলেই তিনি আজও এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করে যেতে পারছেন।

এদিকে প্রসেনজিতের এই বার্তা বোনের কাছেও পৌঁছে দিয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে সংবাদমাধ্যমে গায়ক জানিয়েছেন, “সোনামণির ভাল পোশাক, ভাল-মন্দ খাবারের উপরে কোনও লোভ নেই। কথায় জড়তা, শারীরিক সমস্যা রয়েছে। জানি না ওর ভবিষ্যৎ কী! ও শুধু বুম্বাদার স্বপ্নেই বিভোর। ওকে যদি বলি বুম্বাদাকে মারব, তা শুনেই সঙ্গে সঙ্গে রেগে যাবে। তবে আমাকে চোখে হারায়। তাই মনে হল, ওর এই আবদারটুকু যদি পূরণের চেষ্টা করে দেখতে পারি।” একইসঙ্গে তিনি এও জানালেন, “বুম্বাদাও তা শুনে কথা দিয়েছেন এখন সোনামণির সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলবেন। আর পরে একদিন গড়গড়ি গ্রামে গিয়ে অবশ্যই দেখা করবেন সোনামণির সঙ্গে।”