বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

PNB-এর নিয়মে বড় বদল! ন্যূনতম ব্যালান্স দ্বিগুণ, কম টাকা রাখলেও দিতে হবে দ্বিগুণ চার্জ

০১:৩৭ পিএম, জানুয়ারি ১১, ২০২২

PNB-এর নিয়মে বড় বদল! ন্যূনতম ব্যালান্স দ্বিগুণ, কম টাকা রাখলেও দিতে হবে দ্বিগুণ চার্জ

নতুন বছরের শুরুতেই বড়সড় বদল এল পাঞ্জাব ন্যাশন্যাল ব্যাঙ্কের নিয়মে। সেভিংস অ্যাকাউন্ট, লকার, ডিমান্ড ড্রাফ্ট ও কারেন্ট অ্যাকাউন্ট সহ বেশ নিয়মে বেশ কয়েকটি বদল করা হয়েছে। ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়েছে, এবার থেকে গ্রাহকেরা ব্যাঙ্কের যে সমস্ত পরিষেবা নেবেন, তার জন্য আরও বেশি শুল্ক দিতে হবে। এছাড়াও ব্যাঙ্কের মিনিমাম ব্যালেন্স রাখার ক্ষেত্রেও এসেছে বড় বদল।

পিএনবির ওয়েবসাইট থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা গিয়েছে, ব্যাঙ্কের সেভিংস অ্যাকাউন্টে মিনিমাম নূন্যতম যে ব্যালেন্স রাখতে হত, তা দ্বিগুণ হয়েছে। এবার থেকে শহরাঞ্চলের গ্রাহকদের সেভিংস অ্যাকাউন্টে সর্বদা ১০,০০০ টাকা রাখতে হবে। আর সেভিংস অ্যাকাউন্টে সেই মিনিমাল ব্যালান্স না থাকলে আগের থেকে দ্বিগুণ টাকা গুণতে হবে। এর আগে অ্যাকাউন্টে কম টাকা থাকলে জরিমানা হিসাবে দিতে হত ৩০০ টাকা। এবার থেকে সেটি দ্বিগুম হবে অর্থাৎ ৬০০ টাকা গুণতে হবে। অন্যদিকে, গ্রামীণ এলাকায় গ্রাহকদের মিনিমাম ব্যালান্স না থাকলে আগে ২০০ টাকা জরিমানা দিতে হত। এবার থেকে তা ৪০০ টাকা দিতে হবে৷

পাশাপাশি লকারের নিয়মেও এসেছে বদল। একটু বড় আকারের লকার ছাড়া সব ধরনের লকারের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের এবার বেশি টাকা দিতে হবে। শহর বা শহরতলিতে গ্রাহকদের লকারের জন্য আগের থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত বেশি দিতে হবে। শহরাঞ্চলে ছোট লকারের জন্য দিতে হবে ২,০০০ টাকা। ১,৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এই মূল্য ধার্য করা হয়েছে। গ্রামীণ এলাকায় আগে ছোট আকারের লকারের জন্য দিতে হত ১০০০ টাকা। সেটি এবার থেকে দিতে হবে ১,২৫০ টাকা।

পিএনবির পক্ষ থেকে লকারের সংখ্যাও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে ৷ এর আগে ১৫ বার বছরে লকার ভিজিট করতে পারতেন গ্রাহকেরা। তবে এবার থেকে বছরে ১২ বার লকারে ভিজিট করতে পারবেন গ্রাহকেরা। এরপর থেকে প্রতিটি ভিজিটে ১০০ টাকা করে বাড়তি দিতে হবে গ্রাহকদেরকে। এছাড়াও কারেন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার ১৪ দিন অথবা ১ বছরের মধ্যে বন্ধ করতে গেলে ৮০০ টাকা পর্যন্ত শুল্ক দিতে হবে। পিএনবির ডিমান্ড ড্রাফ্ট ক্যানসেল করাতে হলে আগের থেকে ৫০ টাকা বেশি দিতে হবে। ব্যাঙ্ক সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামী ১৫ জানুয়ারি থেকে এই নতুন নিয়ম কার্যকর হবে। অন্যদিকে, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কোনও কিস্তির টাকা যথার্থ ফান্ড না থাকার কারণে কাটা না গেলে ২৫০ টাকা জরিমানা দিতে হবে।