নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছে, আজ দেশজুড়ে পালিত হল রেল রোকো কর্মসূচি

নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছে, আজ দেশজুড়ে পালিত হল রেল রোকো কর্মসূচি
নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছে, আজ দেশজুড়ে পালিত হল রেল রোকো কর্মসূচি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ কেন্দ্রের আনা নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবির সিদ্ধান্তে এখনও অনড় দেশের কৃষকরা। ট্রাক্টর মিছিলের পর, আজ দেশব্যাপী ছিল ৪ ঘণ্টার জন্য রেল রোকো কর্মসূচি, এই আইনের প্রতিবাদে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় এই কর্মসূচি পালিত হয়। বেলা ১২টা থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত রেল রোকো কর্মসূচি পালন করা হয়।

কৃষক সংগঠনের তরফে এই কর্মসূচি প্রসঙ্গে জানানো হয়েছিল যে, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টি তাঁরা খেয়াল রাখবেন। তাই কোথাও এই কর্মসূচি পালনের কারণে ট্রেন আটকে পড়লে, আন্দোলনকারী কৃষকদের তরফে যাত্রীদের জল, দুধ, লস্যি, ফল ইত্যাদি দেওয়া হবে। অন্যদিকে, দিল্লির ট্র্যাক্টর মিছিলের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে, কৃষকদের এই রেল রোকো কর্মসূচিকে ঘিরে কোনওভাবেই যাতে আবারও বিশৃঙ্খলা তৈরি বা কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, তার জন্য আগে থেকেই যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল কেন্দ্র। দেশের মধ্যে চার রাজ্যে বাড়ানো হয় রেলের নিরাপত্তা। আবার আগাম সতর্কতা হিসেবে পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা এবং এ রাজ্যে আরপিএফের তরফে ২০টি অতিরিক্ত কোম্পানি পাঠিয়েছিল কেন্দ্র।

বাংলাতেও বিভিন্ন জায়গায় এই রেল রোকো কর্মসূচি পালিত হয়। কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে, সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার ডাকে রাজ্যে বামেদের রেল রোকো কর্মসূচি পালিত হয় আজ। কৃষক সংহতি মঞ্চের ব্যানারে নদিয়ার কৃষ্ণনগর স্টেশনে আধঘণ্টা রেল অবরোধ করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টা থেকে বিকাল ৪ টে পর্যন্ত ট্রেন অবরোধের সময়সীমার নির্দেশ থাকলেও, পশ্চিমবঙ্গে আজ বেশকিছু পরীক্ষা থাকার কারণে, ছাত্র-ছাত্রীদের কথা বিবেচনা করে, বিকাল ৩ টে থেকে ৪ টে, এই ১ ঘন্টার মধ্যে নিজ নিজ এলাকার পরিস্থিতি অনুযায়ী, নদীয়ার প্রায় বেশিরভাগই স্টেশনে এই বিক্ষোভ সংঘটিত হয়। রানাঘাট চাকদহ কৃষ্ণনগর এবং ফুলিয়াতেও এই কর্মসূচি পালিত হয়।

আজ কেন্দ্রের নতুন ৩টি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে এবং নবান্ন আভিযানে দলীয় কর্মীর মৃত্যুর প্রতিবাদে ধূপগুড়িতে রেল অবরোধ করে ডিওয়াইএফআই এবং সারা কৃষকসভার কর্মীরা। আজ সকালে প্রথমে ধূপগুড়িতে দলীয় কার্যলয়ে জড়ো হন তাঁরা। সেখান থেকে ধূপগুড়ি রেল স্টেশনে পৌঁছে, বিক্ষোভ অবরোধ শুরু করেন। এই বিক্ষোভের জেরে একটি মালগাড়ি দীর্ঘক্ষণ সময়ের জন্য আটকে পড়ে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি ঠেকাতে স্টেশনে মোতায়েন ছিল পুলিশ বাহিনী।

কেন্দ্রের নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আজ গোটা দেশেই রেল রোকো কর্মসূচি পালিত হয়। তবে, এ রাজ্যে কৃষি আইন বাতিলের পাশাপাশি এই কর্মসূচিতে আরও একটি বিষয় যুক্ত হয়। আর তা ছিল ডিওয়াইএফআই কর্মী মইদুল মিদ্দার মৃত্যু। এই দুটি বিষয়কে সামনে রেখে, ২ বামপন্থী সংগঠনের রেল অবরোধের জেরে আজ রাজ্যের বিভিন্ন স্টেশনে দাঁড়িয়ে পড়ে বেশ কিছু ট্রেন, দীর্ঘ সময়ের জন্য।

এদিন ধূপগুড়ির কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বাম নেতা প্রাণগোপাল ভাওয়াল, জয়ন্ত মজুমদার, নির্মাল্য ভট্টাচার্য প্রমুখ। তাঁরা জানান, কেন্দ্রীয় কৃষি আইন বাতিলের দাবি্র পাশাপাশি দিল্লিতে কৃষকদের আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েই, তাঁদের আজকের এই রেল অবরোধ কর্মসূচি।

আরো পড়ুনঃ   স্ত্রী একজন স্বতন্ত্র মানুষ, স্বামীর দাসী নন, তাঁকে বৈবাহিক সম্পর্কে থাকতে বাধ্য করা যাবে না, রায় শীর্ষ আদালতের