২৬ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে নিউ জলপাইগুড়ি-ঢাকা রেল চলাচল

২৬ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে নিউ জলপাইগুড়ি-ঢাকা রেল চলাচল
প্রতীকী ছবি

রেলপথে জুড়ছে নিউ জলপাইগুড়ি-ঢাকা। ২৬ মার্চ থেকেই দুই দেশের মধ্যে শুরু হবে যাত্রীবাহী রেল পরিষেবা। গত ডিসেম্বর মাসে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর ভারচুয়াল উপস্থিতিতে এই রেলপথ চালুর উদ্যোগ নেওয়া হলেও ট্রেন এখনও চলেনি। বুধবার রেলকর্তারা যাত্রীবাহী ট্রেন চালনা নিয়ে আলোচনা করেন।

এর আগে, সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেন, এই রেলপথ দিয়েই উত্তরবঙ্গের সঙ্গে প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশের মেলবন্ধন ঘটবে। মঙ্গলবার ভারত ও বাংলাদেশের রেলকর্তাদের মধ্যে বৈঠক শুরু হয়।

সূত্রের খবর, এই রেলপথ খুব শিগগির চালু করার বিষয়ে একাধিক পদক্ষেপ করা হয়। নিউ জলপাইগুড়ির রেলওয়ে ইলেকট্রিক অফিসের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশের পাকসি ডিভিশনের ডিআরএম এস ইসলাম, কাটিহারের ডিআরএম আর কে বর্মা ও শিয়ালদহের ডিআরএম এসপি সিং-সহ দুই দেশের একাধিক রেলকর্তাদের বৈঠক হয়। পণ্যবাহী ট্রেনের যাতায়াতের বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্তে আসার একাধিক পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা হয়।

মঙ্গলবার বৈঠক শেষে রেল কর্তারা জানিয়েছিলেন, আগামী দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে হলদিবাড়ি থেকে বাংলাদেশের চিলাহাটি পর্যন্ত ট্রেন চলাচল শুরু হবে। প্রথমে পণ্যবাহী পরে যাত্রীবাহী ট্রেন চলবে।

১৯৬৫ সালের আগে হলদিবাড়ি থেকে চিলাহাটি পর্যন্ত ট্রেন চললেও ভারত-পাক যুদ্ধের পর সেই রুট বন্ধ হয়ে যায়। লাইন তুলে ফেলা হয়। ২০১১ সালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই দেশের সংযোগকারী লাইন ফের চালু করার উদ্যোগ নেন। ২০১৮ সালে হলদিবাড়ির বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে চিলাহাটি পর্যন্ত নয় কিলোমিটার ব্রডগেজ লাইন তৈরি করে বাংলাদেশ সরকার। খরচ হয় ৮০ কোটি টাকারও বেশি। হলদিবাড়ি থেকে সাড়ে তিন কিলোমিটার বাংলাদেশ সীমান্ত পর্যন্ত ব্রডগেজ লাইন তৈরি করে ভারত সরকার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.